ঢাকা, ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮, বুধবার
KSRM

ঠাকুর নরোত্তম দাসের তিরোভাব তিথি মহোৎসব শুরু

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
৯ অক্টোবর ২০১৭, সোমবার
প্রকাশিত: 11:50 আপডেট: 11:52
ছবি: ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি

রাজশাহী: নগরীর গোদাগাড়ীতে ৩ দিনব্যাপী ঐতিহ্যবাহী গৌরাঙ্গবাড়িতে ঠাকুর নরোত্তম দাসের তিরোভাব তিথি মহোৎসব শুরু হয়েছে। ভক্তদের মতে, প্রেমভক্তি মহারাজ ও অহিংসার প্রতীক ঠাকুর নরোত্তম দাস। সোমবার (০৯ অক্টোবর) সন্ধ্যায় শুভ অধিবাসের মধ্যে দিয়ে মহোৎসব শুরু হয়।

মঙ্গলবার (১০ অক্টোবর) অরুণোদয় হতে অষ্ট প্রহরব্যাপী তারক ব্রহ্মনাম সংকীর্ত্তন, বুধবার প্রথম প্রহরে দধিমঙ্গল, দ্বি-প্রহরে ভোগ আরতি ও মহান্ত বিদায়ের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানমালার সমাপ্তি হবে। 

নরোত্তম ঠাকুর মহাশয় এর সংক্ষিপ্ত জীবনী, ১৫৩১ খ্রিস্টাব্দে ঠাকুর নরোত্তম দাস তৎকালীন গড়েরহাট পরগণার অন্তর্গত ও বর্তমান গোদাগাড়ী উপজেলার পদ্মাতীরস্থ গোপালপুর গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা জমিদার কৃষ্ণনন্দ দাস, মা নারায়নী রাণী।

গোপলপুরে শৈশব অতিবাহিত করে ঠাকুর নরোত্তম দাস বৃন্দাবন অভিমুখে যাত্রা করেন। সেখানে নিখিল বৈষ্ণবকুল চূড়ামণি লোকনাথ গোস্বামীর শিষ্যত্ব গ্রহণ করে দীক্ষা লাভ করেন। পরে তিনি গোদাগাড়ীর খেতুরী গ্রামে আসেন। খেতুর মন্দিরে স্থাপনা গড়ে তোলেন এবং সেখানে উৎসব আয়োজনের ব্যবস্থা করেন।

এখানে দূর-দূরান্ত থেকে ভক্তরা এসে তার কাছে দীক্ষা গ্রহণ করতে শুরু করেন। ১৬১১ খ্রিস্টাব্দের কার্তিকী কৃষ্ণা পঞ্চমী তিথিতে ঠাকুর নরোত্তম দাস নিত্তলীলায় প্রবেশের মানসে গঙ্গাস্নানের বাসনা প্রকাশ করেন। শিষ্যগণ তাকে গঙ্গাজলে নিয়ে গেলে নিজের দেহকে অর্ধনিমজ্জিত করে প্রিয় শিষ্য গঙ্গানারায়ণ ও রামকৃষ্ণকে আদেশ করেন দেহ মার্জন করতে। গুরু আজ্ঞায় নরোত্তমের ওই দুই শিষ্য দেহ মার্জন করতে থাকলে পুরো দেহ সাদা দুধের মতো তরল পদার্থে পরিণত হয়ে গঙ্গাজলে মিলিত হয়ে যায়।

সে অনুযায়ী ঠাকুর নরোত্তম দাস পৃথিবীতে ৮০ বছর স্থায়ী ছিলেন। এরপর থেকেই দুর্গাপূজার পর বৈষ্ণব ধর্মের অনুসারীরা অহিংসার এই মহান সাধক ঠাকুর নরোত্তম দাসের কৃপা লাভের আশায় খেতুরী ধামে বার্ষিকী পালন হয়ে আসছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) জাহিদ নেওয়াজ বলেন, ‘এবারের উৎসবকে ঘিরে প্রায় ৫ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে। মহোৎসব নির্বিঘ্নে করতে মাঠে থাকবেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।’

গোদাগাড়ী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হিপজুর আলম মুন্সি জানান, খেতুরীধাম ও মেলাকে ঘিরে ওই এলাকায় যে কোনও অপ্রীতিকর পরিস্থিতি এড়াতে সেখানে জেলা পুলিশের বিপুল সংখ্যক সদস্য সার্বক্ষণিক দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবেন। এছাড়া প্রেমতলী বাজারে বসানো হবে পুলিশ কন্ট্রোল রুম। মাঠে থাকবে র‌্যাব, গোয়েন্দা পুলিশ ও আনসার বাহিনির সদস্যরা। সেখানে সিসি ক্যামেরা দ্বারা সার্বক্ষণিক নজদারি করা হবে।

গৌরাঙ্গদেব ট্রাস্ট বোর্ডের সম্পাদক শ্যামাপদ স্যানাল জানান, সারা পৃথিবীতে হিন্দু ধর্মাবলাম্বীদের মোট ৬টি ধাম রয়েছে। এরমধ্যে ৫টিই ভারতবর্ষে। একটি মাত্র বাংলাদেশে। আর তা এই খেতুরীধাম। এ কারণে প্রতিবছর উৎসবকে ঘিরে দেশের বিভিন্ন জেলাসহ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, ত্রিপুরা ও আসাম এবং নেপাল ও মায়ানমারসহ বিভিন্ন দেশ থেকে কয়েক লাখ ভক্তের সমাগম ঘটে খেতুরীধামে। এবার ভক্তের সংখ্যা ৭ লাখ ছাড়িয়ে যাওয়ার আশা করেন তিনি। 

গৗরাঙ্গবাড়ি মন্দিরের ব্যবস্থাপক গোবিন্দ চন্দ্র পাল জানিয়েছেন, সুন্দর পরিবেশে অনুষ্ঠান সম্পন্ন করতে এবার ব্যাপক প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।

লাখ লাখ নারী-পুরুষ ভক্তের জন্য প্রয়োজনীয় প্রসাদ বিশুদ্ধ পানি ও স্বাস্থ্যসম্মত স্যানিটেশনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। যাতায়াত নির্বিঘ্নে করতে প্রেমতলী বাজার থেকে খেতুরীধাম পর্যন্ত প্রায় ৩ কিলোমিটার সংযোগ সড়কটিতে আলোকসজ্জার ব্যবস্থা করা হয়েছে। আগত ভক্তদের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিত করতে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. জাহাঙ্গীর আলমের নেতৃত্বে প্রায় ৩০টির মতো মেডিকেল টিম গঠন করে অভিজ্ঞ স্বাস্থ্য কর্মী নিয়োগ করে স্বাস্থ্য সেবা দিতে প্রস্তুত আছে।

ব্রেকিংনিউজ/ এসডিএম/এমএস

সম্পর্কিত বিষয়ঃ   ভারত

প্রকাশক ও সম্পাদক: মো: মাইনুল ইসলাম
শারাকা ম্যাক, ২এইচ-প্রথম তলা
৩/১-৩/২ বিজয়নগর, ঢাকা- ১০০০
৯৩৪৮৭৭৪-৫ ৮৩৯১৫২৪
news@breakingnews.com.bd
নিউজরুম হটলাইন:-
০১৬৭৮ ০৪০২৩৮
০২ ৮৩৯১৫২৪
bnbdcountry@gmail.com
bnbdnews.reporter@gmail.com
Copyright © 2018 All rights reserved