ভাইভা দেবেন ২০ বছর আগের সেই বিসিএস প্রার্থী সুমনা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২০ নভেম্বর ২০২০, শুক্রবার
প্রকাশিত: ০৮:৫৩ আপডেট: ১০:২২

ভাইভা দেবেন ২০ বছর আগের সেই বিসিএস প্রার্থী সুমনা

বিসিএস (স্বাস্থ্য) ক্যাডারে ২০০১ সালের প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষায় মুক্তিযোদ্ধা কোটায় উত্তীর্ণ প্রার্থী সুমনা সরকারের মৌখিক (ভাইভা) পরীক্ষা গ্রহণের জন্য পাবলিক সার্ভিস কমিশনকে (পিএসসি) নির্দেশ দিয়েছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ।

২৩তম বিসিএস প্রিলি ও লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ সুমনা যদি মৌখিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন তখন তাকে নিয়োগ দিতেও পিএসসির প্রতি নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (১৯ নভেম্বর) প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বাধীন আপিল বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদালতে আজ সুমনা সরকারের পক্ষে ছিলেন আইনজীবী মোতাহার হোসেন সাজু ও সেলিনা আক্তার চৌধুরী। অন্যদিকে পিএসসির পক্ষে ছিলেন আইনজীবী শামীম খালেদ আহমেদ।

আইনজীবীরা জানান, ২৩তম বিসিএস পরীক্ষা দিয়ে প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষায় পাস করা মুক্তিযোদ্ধার সন্তান সুমনা সরকারকে ভাইভা পরীক্ষা গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ। সুমনা সরকারের মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণের জন্য পাবলিক সার্ভিস কমিশনকে নির্দেশ দেন এবং ভাইভায় পাস করলে তাকে নিয়োগ দিতেও বলেছেন আদালত।

মামলার বিবরণ তুলে ধরে সুমনা সরকারের আইনজীবী মোতাহার হোসেন সাজু বলেন, `১৯৯৯ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত বিভিন্ন সময়ে অনুষ্ঠিত ২৩তম বিসিএস (বিশেষ) স্বাস্থ্য ক্যাডারে মুক্তিযোদ্ধার সন্তান হিসেবে অংশগ্রহণ করেছিলেন সুমনা সরকার। প্রিলিমিনারি ও লিখিত পরীক্ষায় পাস করেন। কিন্তু ওই সময় মুক্তিযোদ্ধার সনদ সংক্রান্ত জটিলতার কারণ দেখিয়ে সুমনাসহ অনেক পরীক্ষার্থীর মৌখিক (ভাইভা) পরীক্ষার কার্ড ইস্যু করা হয়নি। পরে তারা ভাইভা পরীক্ষা দিতে পারেনি।`

এরপর ২০০১ সালে মৌখিক পরীক্ষা দিতে গেলে সুমনার ভাইভা পরীক্ষা গ্রহণ করা হয়নি। এরপর ২০০৩ সালে তাদের মধ্যে থেকে ১২ জন হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন। ওই রিটের শুনানি নিয়ে হাইকোর্ট তাদের মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ করার নির্দেশ দেন। পরে ওই ১২ জন মৌখিক পরীক্ষা দিয়ে সরকারি চাকরিতে নিয়োগও পান।

এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৯ সালে এসে ডা. সুমনা সরকার হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন। ওই রিটের দীর্ঘ শুনানি শেষে ২০১৫ সালে হাইকোর্ট তার মৌখিক পরীক্ষা গ্রহণ করার নির্দেশ দেন। কিন্তু হাইকোর্টের রায় স্থগিত চেয়ে আপিল করে পিএসসি। আপিল বিভাগের চেম্বারজজ আদালত হাইকোর্টের রায়টি ২০১৬ সালের ১০ অক্টোবর স্থগিত করেন। এরপর দীর্ঘদিন মামলাটি আপিল বিভাগে বিচারের জন্য অপেক্ষমাণ ছিল। অবশেষে এই মামলার শুনানি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ সুমনাকে মৌখিক পরীক্ষা দেয়ার সুযোগ দিতে পিএসসিকে আজ নির্দেশ দিয়ে আবেদনটি নিষ্পত্তি করেন।

সুমনা সরকারের গ্রামের বাড়ি টাঙ্গাইল হলেও বর্তমানে তিনি চট্টগ্রামে একটি বেসরকারি চক্ষু হাসপাতালে চক্ষু বিশেষজ্ঞ হিসেবে চাকরি করছেন। তার বাবা মুক্তিযোদ্ধা প্রফেসর ডা. অমল কৃষ্ণ সরকার টাঙ্গাইলের কাদেরিয়া বাহিনীর সদস্য ছিলেন বলেও তিনি জানান। 

ব্রেকিংনিউজ/কেআই/এমআর

breakingnews.com.bd
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি