'অপারেশন সুন্দরবন' -এর টিজার-ওয়েবসাইট উন্মোচিত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১, বুধবার
প্রকাশিত: ০৩:২৮ আপডেট: ১২:৪৭

'অপারেশন সুন্দরবন' -এর টিজার-ওয়েবসাইট উন্মোচিত

বিশ্বের সর্ববৃহৎ ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত করতে পুলিশের এ্যালিট ফোর্স র‍্যাপিড অ্যাকশান ব্যাটালিয়নের (র‍্যাব) দুঃসাহসিক অভিযান নিয়ে নির্মিত হয়েছে চলচ্চিত্র 'অপারেশন সুন্দরবন'।

মহান স্বাধীনতার ৫০ বছর পূর্তি উপলক্ষে বহুল আলোচিত এই চলচ্চিত্রটি মুক্তির প্রস্তুতি চলছে পুরোদমে। এবার জমকালো আয়োজনের মধ্যে দিয়ে উন্মোচিত হলো সিনেমাটির টিজার ও ওয়েবসাইট।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) রাতে রাজধানীর কুর্মিটোলা গলফ ক্লাবে সিনেমাটির জনপ্রিয় তারকা ও কলাকুশলীদের উপস্থিতিতে এক ঝলমলে আয়োজনে টিজার ও ওয়েবসাইটের উদ্বোধন করেন পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ।

টিজার ও ওয়েবসাইটের উদ্বোধনের পর আইজিপি বেনজীর আহমেদ বলেন, সুন্দরবন অঞ্চলটি জলদস্যু আক্রান্ত ছিলো। বিশেষ করে মৎস্য আহরণের মৌশুমে জলস্যুর হাতে হত্যা বা নিপীড়নের স্বীকারের খবর আসতো প্রতিনিয়ত। প্রান্তিক জনগোষ্ঠির উপর এ ধরনের নির্যাতন নিরসনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনায় ২০১২ সাল থেকে র্যাব অন্যান্য বাহিনীর সহযোগিতায় অভিযান শুরু করে। ধারাবাহিক অভিযানে বিপুল সংখ্যক জলদস্যু গ্রেফতার হয় এবং উল্লেখযোগ্য সংখ্যক জলদস্যু র‍্যাবের সঙ্গে গোলাগুলিতে নিহত হয়।

গল্পটি যতোটা সহজভাবে বলছি, বাস্তবে এতোটা সহজ নয়। সেখানকার পরিস্থিতি কতোটা চ্যালেঞ্জিং, সেখানে না গেলে বোঝা যায়না। একদিন-দুইদিন পরিবারের সঙ্গে সুন্দরবনে অবকাশ যাপন আর ভেতরে অবস্থান করে জলদস্যুর বিরুদ্ধে অপারেশন পৃথক ঘটনা। জলদস্যুদের বিরুদ্ধে ধারাবাহিক অভিযানে র‍্যাবের একাধিক সদস্য-কর্মকর্তা আহত হয়েছেন, বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। এর পেছনে বহু ত্যাগ আছে। এরই ধারাবাহিকতায় ২০১৮ সালে প্রধানমন্ত্রী সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত ঘোষণা করেন।

বেনজীর আহমেদ বলেন, পৃথিবীর বৃহৎ ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবনকে এখন যেমন শান্ত ও নিবিড়ভাবে পাওয়া যায়, সেটা তেমন ছিল না। এখনকার প্রজন্ম বা কয়েক দশক পরের প্রজন্ম হয়তো ভাবতে পারেন, সুন্দরবন এমনই। আমাদের দেশের মানুষ বিস্মৃতিপ্রবণ। এর পেছনে যে ত্যাগ-তিতীক্ষা ভালোবাসা রয়েছে, আমাদের ফোর্সরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অপারেশন চালিয়ে সুন্দরবনকে দস্যুমুক্ত করেছে, একসময় মানুষ হয়তো ভুলে যাবে। সেই ভাবনা থেকেই ছবিটি তৈরি। যাতে প্রজন্মের পর প্রজন্ম জানতে পারে সুন্দরবন কেমন ছিলো, আমাদের আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী কী করেছে।

সিনেমাটির নির্মাণ প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, এটি তৈরি করতে আমাদের বেশি বাজেট লাগেনি। তবে এতে যে লজিস্টিক সাপোর্ট, উপকরণ, অস্ত্র, সুবিধা ব্যবহৃত হয়েছে এগুলো যদি টাকায় ভাড়া করতে হতো তাহলে এটা করতে ৩০-৩৫ কোটি লাগত। সেটা লাগেনি কারণ আমাদের ফোর্স সার্বিকভাবে সাপোর্ট দিয়েছে। আমরা খুব অল্প বাজেটে কাজ শেষ করেছি।

সিনেমাটি বিশ্বব্যপী সকল বাঙালির মন জয় করতে পারবে আশাপ্রকাশ করে সিনেমা ও এর টিজারের সফলতা কামনা করেন তিনি। সিনেমার সকল কলাকুশলী এবং যারা নেপথ্যের কর্মী হিসেবে কাজ করেছেন, সবাইকে ধন্যবাদ জানান আইজিপি।

অনুষ্ঠানের প্রথমভাগে অতিথিদের বক্তব্য, টিজার ও ওয়েবসাইটের উদ্বোধন করা হয়। দ্বিতীয়ভাগে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হয়। এ সময় চিত্রনায়ক জিয়াউল রোশানের অংশগ্রহণে বহুল প্রতীক্ষিত তারকাবহুল ‘অপারেশন সুন্দরবন’ সিনেমার ‘প্রেমের চাঁদরে’ ও ‘চাই ঘূর্ণিঝড়ে’ শিরোনামের দুটি গানে নাচ পরিবেশন করা হয়।

‘অপারেশন সুন্দরবন’-এর নির্মাতা দীপংকর দীপন জানান, চলচ্চিত্র সম্পর্কে সব তথ্য দিয়ে সাজানো হয়েছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’-এর ওয়েবসাইট। টিজার ছাড়াও এতে বেশ কিছু ভিডিও থাকবে। ওয়েবসাইটের ঠিকানা- https://operationsundarban.com

র‍্যাব মহাপরিচালক (ডিজি) চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন বলেন, অপারেশন সুন্দরবন চলচিত্র থেকে প্রাপ্ত লভ্যাংশের অধিকাংশ জলদস্যু কর্তৃক ক্ষতিগ্রস্ত ভিক্টিমদের সহয়তা, আত্মসমর্পণকৃত জলদস্যুদের পুনর্বাসনসহ উপকূলীয় অঞ্চলের জনকল্যাণে ব্যয় করা হবে। ছবিটি নির্মাণে ব্যবহার করা হয়েছে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি। ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের সুন্দরবনকে জলদস্যুমুক্ত করণে র‍্যাবের দুঃসাহসিক অভিযান দেশের সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে র‍্যাব ওয়েলফেয়ার কো-অপারেটিভ সোসাইটি কর্তৃক নির্মিত অপারেশন চলচ্চিত্রটির অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আমি মনে করি।

অনুষ্ঠানে ডিএমপি কমিশনার মোহা. শফিকুল ইসলাম, সিনেমাটির পরিচালক দীপংকর দীপন, অভিনয়শিল্পী রিয়াজ আহমেদ, সিয়াম আহমেদ, নুসরাত ফারিয়া, শতাব্দী ওয়াদুদ, তাসকিন রহমান, মনোজ প্রামানিকসহ র‍্যাবের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠানে জানানো হয়, বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট সুন্দরবনে একসময় জলদস্যুদের অবাধ বিচরণ ছিল। ফলে সুন্দরবন ছিল সাধারণ মানুষের জন্য ভয়ের এক জায়গা। এমনকি সুন্দরবনের জেলে, মৌয়ালও জীবিকা নির্বাহের জন্য মাছ ধরতে ও মধু সংগ্রহ করতে পারত না। র‍্যাবের একের পর এক অভিযানে সুন্দরবন এখন দস্যুশূন্য।

র‍্যাবের এই দুঃসাহসিক অভিযানকে উপজীব্য করেই নির্মিত হয়েছে ‘অপারেশন সুন্দরবন’। চলচ্চিত্র নির্মাণে যৌথভাবে প্রযোজনা করেছে র‍্যা ফোর্সেস ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ও থ্রি হুইলারস। র্যাবের সাবেক মহাপরিচালক ড. বেনজীর আহমেদের অনুপ্রেরণায় লিগ্যাল এন্ড মিডিয়া উইংয়ের তত্বাবধানে চলচ্চিত্রটি নির্মিত হয়েছে।

‘অপারেশন সুন্দরবন’ চলচ্চিত্রের বিভিন্ন চরিত্রে অভিনয় করছেন রিয়াজ আহমেদ, শতাব্দী ওয়াদুদ, মনির খান শিমুল, সিয়াম আহমেদ, নুসরাত ফারিয়া, জিয়াউল রোশান, তাসকিন রহমান, মনোজ প্রামানিক , দীপু ইমাম, এহসানুর রহমান প্রমুখ।



ব্রেকিংনিউজ/টিটি/নিহে

breakingnews.com.bd
প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা, ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫, ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
প্রকাশক : মো: মাইনুল ইসলাম
 শারাকা ম্যাক, ২ এইচ-প্রথম তলা,
  ৩/১-৩/২ বিজয় নগর, ঢাকা-১০০০
 টেলিফোন : ০২-৯৩৪৮৭৭৪-৫,
 ইমেইল : breakingnews.com.bd@gmail.com
 নিউজরুম হটলাইন : ০১৬৭৮-০৪০২৩৮, ০২-৮৩৯১৫২৪
 নিউজরুম ইমেইল : bnbdcountry@gmail.com, bnbdnews.reporter@gmail.com
© ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি