শিরোনাম:

ভিকারুননিসার শিক্ষিকা হাসনা হেনা কারাগারে

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
৬ ডিসেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 6:52
ভিকারুননিসার শিক্ষিকা হাসনা হেনা কারাগারে

ভিকারুননিসা নূন স্কুলের নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী অরিত্রী অধিকারীকে আত্মহত্যায় প্ররোচনা দেয়ার অভিযোগে প্রতিষ্ঠানটির শিক্ষিকা হাসনা হেনার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। 

বৃহস্পতিবার (৬ ডিসেম্বর) বিকেলে পুলিশ তাকে আদালতে হাজির করে মামলার তদন্ত শেষ না হওয়া পর্যন্ত কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন।

আদালতে হাসনা হেনার পক্ষে আইনজীবী জাহাঙ্গীর হোসেন তার জামিন চেয়ে শুনানি করেন। উভয়পক্ষের শুনানি শেষে ম্যাজিস্ট্রেট আবু সাইদ জামিন নামঞ্জুর করে হাসনা হেনাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গতকাল বুধবার বিকেলে নিহতের বাবা দিলীপ অধিকারী পল্টন থানায় আরও একটি মামলা করেন। ঢাকা মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার (গোয়েন্দা) আব্দুল বাতেনকে মামলার তদন্তভার দেয়া হয়।

এর পরই বুধবার রাত সাড়ে ১১টার দিকে উত্তরার একটি বাসায় অভিযান চালিয়ে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি শিক্ষিকা হাসনা হেনাকে গ্রেফতার করে ডিবি কার্যালয়ে নেয়া হয়।

এর আগে গতকাল বুধবার শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মেনে ভিকারুননিসার ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, শাখাপ্রধান জিনাত আখতার ও অরিত্রীর শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে বরখাস্ত করা হয়।

গত মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর পল্টন থানায় অরিত্রীর বাবা দিলীপ অধিকারী বাদী হয়ে দণ্ডবিধির ৩০৫ ধারায় ভিকারুননিসা নূন স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ নাজনীন ফেরদৌস, শাখাপ্রধান জিন্নাত আরা ও শ্রেণিশিক্ষক হাসনা হেনাকে আসামি করে একটি মামলাটি দায়ের করেন।

মামলার অভিযোগে অরিত্রির বাবা দিলীপ অধিকারী জানান, স্কুলের পরীক্ষায় মোবাইল ব্যবহার করে নকলের অভিযোগে অরিত্রিকে পরীক্ষা হল থেকে বের করে দেয়া হয়। এর পর সোমবার সে আবারও পরীক্ষায় অংশ নিতে গেলে স্কুল কর্তৃপক্ষ তার বাবা-মাকে ডেকে পাঠায়। এতে অপমান বোধ করে নিজ কক্ষে সিলিং ফ্যানের সঙ্গে ওড়নায় ফাঁস দিয়ে আত্মহনের পথ বেছে নেয় অরিত্রি। 

অরিত্রীর গ্রামের বাড়ি বরগুনা সদরে। তার বাবা দিলীপ অধিকারী একজন সিঅ্যান্ডএফ ব্যবসায়ী।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

সংশ্লিষ্ট আরো খবর
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2