শিরোনাম:

বাবাকে অপমান শিক্ষকের, সইতে না পেরে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
৩ ডিসেম্বর ২০১৮, সোমবার
প্রকাশিত: 7:27 আপডেট: 7:38
বাবাকে অপমান শিক্ষকের, সইতে না পেরে স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

ক্লাসের পরীক্ষায় খারাপ করায় বাবাকে ডেকে অপমান করায় তা সহ্য করতে না পেরে এক স্কুল ছাত্রী আত্মহত্যা করেছে। ওই ছাত্রীর নাম অদিত্রি অধিকারী। সে ভিকারুন্নেসা স্কুলের নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল বলে জানা গেছে। 

সোমবার (৩ ডিসেম্বর) দুপুরে অদিত্রি বিষ পান করে আত্মহত্যার চেষ্টা চালায়। পরে পরিবারের সদস্যরা তাকে উদ্ধার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত বলে ঘোষণা করেন। 

অদিত্রির বাবার সহকর্মী মবিনুর রহমান জানান, ‘অদিত্রি ক্লাস পরীক্ষায় মোবাইলে উত্তরপত্র লিখে নিয়ে গিয়েছিল। সে ধরা পড়ায় তাকে আর পরীক্ষায় অংশ নিতে দেয়নি।  একারণে আজ (সোমবার) সকালে তার বাবা প্রতিষ্ঠানের প্রিন্সিপালের রুমে সরি বলার জন্য গেলে প্রিন্সিপাল তাকে অনেক কিছু বলেন ‘ 

তিনি আরও বলেন, ‘বাবা হয়ে এই অপমান সহ্য করতে না পেরে মেয়ের সামনে কেঁদে ফেলেন। বাবাকে অপমানের বিষয়টি হয়তো মেনে নিতে পারেনি। পরে সে বাসায় ফিরে তার ঘরের দরজা বন্ধ করে দেয় এবং ফ্যানের সাথে ঝুলে আত্মহত্যা করে। পরে তাকে বাহির থেকে অনেক ডাকাডাকি করেও দরজা না খোলায় পরে দরজা ভেঙ্গে তাকে উদ্ধার করা হয়। অসুস্থ অবস্থায় পরে হাসপাতালে নিলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

এ ঘটনায় তার পরিবার স্কুল কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছেন। 

অরিত্রির বাবা দীলিপ অধিকারী অভিযোগ করে বলেন, ‘স্কুল কতৃপক্ষ তাদের জানায় অরিত্রি পরীক্ষায় মোবাইলে নকল করেছে। বড় ধরনের অপরাধ করেছে। তাকে স্কুলে রাখা যাবেনা। তখন আমি এবং অরিত্রির মা অনেক অনুরোধ করি তাকে টিসি না দিয়ে আরেকবার সুযোগ দিতে। কিন্তু কোন কাজ হয়নি। অরিত্রিকে আরেকবার সুযোগ দিলে হয়তো আমার মেয়ে পৃথিবী ছেড়ে চলে যেতো না। অনেক অনুরোধ করা সত্বেও তারা আমাদের কথা রাখলনা। মেয়ের সামনে আমাকে ও আমার স্ত্রীকে শিক্ষক অকথ্য ভাষায় বকাবকি করেন। তা হয়তো মেয়ে সহ্য করতে পারেনি।’ 

অদিত্রীর বাবার নাম দিলীপ বড়ুয়া। তাদের গ্রামের বাড়ি পটুয়াখালী জেলায় এবং অদিত্রি তার পরিবারের সাথে শান্তিনগরে থাকতো।  তার বাবা একজন কাস্টসম (সিএন্ডএফ) ব্যবসায়ী।

ঢামেক হাসপাতালের পুলিশ বক্সের ইনচার্জ (এসআই) বাচ্চু মিয়া মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করে জানায়, ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ মর্গে রাখা হয়েছে। বিষয়টি পল্টন থানায় জানানো হয়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/টিটি/এএইচ/জেআই

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2