শিরোনাম:

এই দিনে আল্লাহর তরফ থেকে সবচেয়ে বড় গিফট পান সাকিব

স্পোর্টস ডেস্ক
৮ নভেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 3:38 আপডেট: 3:43
এই দিনে আল্লাহর তরফ থেকে সবচেয়ে বড় গিফট পান সাকিব

২০০৬ সালের আগস্টে জিম্বাবুয়ে সফরে প্রথমবার জাতীয় দলে ডাক পেয়েছিলেন সাকিব আল হাসান। বাঁহাতি এই অলরাউন্ডার আজ বিশ্ব ক্রিকেটে আইকন তারকা। কিন্তু তার উঠে আসার পথটা এত মসৃণ ছিল না। প্রতিনিয়ত কঠোর পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে নিজেকে ছাড়িয়ে গেছেন। 

তবে ব্যক্তি সাকিবকে অনেকেই কট্টর বাস্তববাদী বলে ধারণা করেন। সাকিব নিজেও বিষয়টি স্বীকার করেন। এবং বলেন, বাস্তববাদী বলেই তিনি আজ এই পর্যন্ত আসতে পেরেছেন। 

২০১২ সালের ১২ ডিসেম্বর সাকিব আল হাসান যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী উম্মে আহমেদ শিশিরের সাথে বিবাহ-বন্ধনে আবদ্ধ হন। ঢাকার হোটেল রূপসী বাংলায় তাদের বিবাহ অনুষ্ঠান সম্পন্ন হয়। বর্তমানে সাকিব আলাইনা হাসান অব্রি নামে এক কন্যা সন্তানের জনক। 

কিন্তু সাকিবের কাছে ১২ ডিসেম্বর বিবাহবার্ষিকীর চেয়ে ৯ নভেম্বর তারিখটিই বেশি অপেক্ষার, আনন্দের। কারণ, ২০১৫ সালের এইদিন তিনি জীবনে প্রথমবার পিতৃত্বের অনুভূতি পেয়েছিলেন। 

বিবিসিকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে সাকিব বলেন, ‘এটা আমার জীবনে সবচেয়ে বড় গিফট আল্লাহর তরফ থেকে। আগে অনেকেই বলতো বাবা হওয়াটা অন্যরকম অনুভূতি, আমার বাবাও বলেছে, আমি তখন বুঝতাম না, কিন্তু এখন বুঝি! এটা আসলে এমন একটা ফিলিংস বলে বোঝানো সম্ভব নয়। ওর কাছে আসলেই আমার সব ক্লান্তি দূর হয়ে যায়।’

স্ত্রী ও পরিবারকে সময় দেয়া নিয়ে সাকিব বলেন, ‘চেষ্টা করি খেলার বাইরে যতোটা সম্ভব পরিবারকে সময় দেয়ার। মাঝে মাঝে অভিযোগ বা হতাশা আসে। কিন্তু আমরা দুজনই অ্যাডজাস্ট করি। তবে আমি না থাকলে ও খুব খারাপ ফিল করে, মিস করে, এটা বুঝতে পারি।’

২০১৫ সালের জানুয়ারিতে টেস্ট, ওডিআই ও টি২০ প্রত্যেক ক্রিকেট সংস্করণে বিশ্বের এক নম্বর অলরাউন্ডার হওয়ার গৌরব অর্জন করেন দেশের এই আইকন ক্রিকেটার। বর্তমানে তিনি আঙুলের চোট কাটিয়ে পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় আছেন। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2