শিরোনাম:

‘তামাক ব্যবসার সম্প্রসারণ নয়, চাই নিয়ন্ত্রণ’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
৯ অক্টোবর ২০১৮, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: 6:56 আপডেট: 7:03
‘তামাক ব্যবসার সম্প্রসারণ নয়, চাই নিয়ন্ত্রণ’

জনস্বাস্থ্য উন্নয়নে অন্যতম অন্তরায় তামাকজাত দ্রব্যর ব্যবহার উল্লেখ করে ২০৪০ সালের মধ্যে ‘তামাকমুক্ত বাংলাদেশ’ লক্ষ্য অর্জনে তামাক ব্যবসার সম্প্রসারণ নয় ,তা নিয়ন্ত্রণের দাবি জানিয়েছে বাংলাদেশ তামাক বিরোধী জোট।

মঙ্গলবার (৯ অ‌ক্টোবর) জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এ দাবি জানানো হয়।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, ‘তামাকের বহুমাত্রিক ভয়াবহতার কারণে বিশ্বব্যাপী তামাক নিয়ন্ত্রণে বহুবিধ কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। কিন্তু চলমান পদক্ষেপসমূহ বাধাগ্রস্থ করতে অপতৎপরতা চালাচ্ছ ধূর্ত তামাক কোম্পানিগুলো। ক্ষতিকর তামাকজাত পণ্যের বাজার সম্প্রসারণ কোন রাষ্ট্রের কাছেই প্রত্যাশিত হতে পারেনা। তামাক কোম্পানীগুলোকে বাজার সম্প্রসারণের সুযোগ প্রদানের মাধ্যমে দেশে তামাক নিয়ন্ত্রণ কোনভাবেই সম্ভব নয়। বরং এর মধ্যেমে নীতিতে তামাক কোম্পানীগুলোর প্রভাব বিস্তারের প্রচেষ্টা আরো বৃদ্ধি পাবে।’

তারা বলেন, ‘আমাদের প্রতিবেশি রাষ্ট্র যখন জনস্বাস্থ্যকে প্রাধান্য দিয়ে ক্ষতিকর তামাকজাত পণ্য উৎপাদনে বিনিয়োগ থেকে বিরত রয়েছে সেখানে বাংলাদেশের মতো রাষ্ট্র যার বিগত দিনে এমডিজি অর্জনে রয়েছে সফলতা, রয়েছে প্রধানমনন্ত্রীর তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তোলার দৃঢ প্রত্যয়, রয়েছে তামাকের ব্যবহার কমিয়ে আনার দীর্ঘমেয়াদী পরিকল্পনা। তার কাছে জনস্বাস্থ্যের চেয়ে ক্ষতিকর তামাক কোম্পানীর আর্থিক বিনিয়োগের প্রাধান্য কখনই প্রত্যাশিত নয়।’

বক্তার আরও বলেন, ‘বর্তমানে বাংলাদেশের ৩০ শতাংশ জনগোষ্ঠী তরুণ। সুতরাং বর্তমান এবং আগামী প্রজন্মের সুস্থতা নিশ্চিতে তামাক নিয়ন্ত্রণে কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ জরুরি। বৈদেশিক বিনিয়োগের নামে তামাক কোম্পানিকে দেশে বাজার সম্প্রসারণের সুযোগ করে দেওয়া হলে একদিকে জনস্বাস্থ্যকে আরো ঝুঁকির মধ্যে ফেলা হবে অপরদিকে বিশ্বের দরবারের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্থ হবে। এমন অবস্থায় জনস্বাস্থ্য বিষয়ক সকল নীতিতে তামাক কোম্পানির হস্তক্ষেপ বন্ধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ জরুরি। পাশাপাশি সরকারের কাছে  আমাদের প্রত্যাশা এসডিজি অর্জনে সফলতা পেতে এবং জনকল্যাণে ২০৪০ সালের মধ্যে তামাকমুক্ত বাংলাদেশ গড়ে তোলার প্রত্যয় বাস্তবায়নে বাংলাদেশে তামাক কোম্পানিগুলোর বাজার সম্প্রসারণ নয়, নিয়ন্ত্রণে কাঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হোক।’

মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন, তামাক বিরোধী জোটের ভারপ্রাপ্ত সমন্বয়ক হেলাল আহমেদ, ওয়ার্ক ফর বেটার বাংলাদেশ (ডাব্লিউইবিবি) ট্রাস্টের পক্ষে গাউম পিয়ারি, তামাক বিরোধী জোটের সদস্য আমির হোসেন প্রমুখ।

‌ব্রে‌কিং‌নিউজ/এএইচএস/জেআই

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2