শিরোনাম:

ভাইকে বাঁচাতে প্রাণ দিলেন বোন

খন্দকার শাহিন, নরসিংদী প্রতিনিধি
৯ অক্টোবর ২০১৮, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: 4:21
ভাইকে বাঁচাতে প্রাণ দিলেন বোন

নরসিংদীর শিবপুরে এক প্রবাসীর বাড়িতে ডাকাতি ঘটনা ঘটেছে। ডাকাতদল ওই বাড়ির স্কুলছাত্রী ফাতেমা আক্তারকে (১৫) কুপিয়ে হত্যা করেছে। এ সময় নিহত ফাতেমার মা রাজিয়া বেগম ও ভাই রায়হানকেও কুপিয়ে জখম করা হয়।

সোমবার (৮ অক্টোবর) দিবাগত রাতে উপজেলার মুনসেফেরচর এলাকায় প্রবাসী মতিউর রহমানের বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে। নিহত ফাতেমা একই এলাকার মৃত শহীদুল হক গাজীর মেয়ে। সে স্থানীয় শাষপুর কাজী মফিজ উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয়ের নবম শ্রেণির ছাত্রী ছিল।

পুলিশ ও স্থানীয়সূত্রে জানা যায়, মৃত শহীদুল হক গাজীর তিন মেয়ে এক ছেলে। গত ১০ বছর আগে তিনি মারা যাওয়ার পর বাড়ির বড় মেয়ে শাহিনা বেগমের স্বামী প্রবাসী মতিউর রহমান তাদের ভরণ পোষণের দায়িত্ব নেন। তারা সবাই মতিউর রহমানের বাড়িতেই থাকতেন। সোমবার দিবাগত রাত আনুমানিক দেড়টার দিকে ২০-২৫ জনের একদল ডাকাত বাড়ির কলাপসিবল গেইটের তালা ভেঙে ভেতরে প্রবেশ করে।

এ সময় বাড়ির লোকজনের চিৎকার শুনে আশপাশের লোকজন জড়ো হওয়ার চেষ্টা করলে ডাকাতদল এক ভরি স্বর্ণালংকার ও চারটি মোবাইল সেট নিয়ে চলে যাওয়ার সময় নিহত ফাতেমার ভাই রায়হান মিয়া এক ডাকাতকে ধরে ফেলে। এ সময় ডাকাতদলের অন্য সদস্যরা রায়হানকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত করে। ভাইকে বাঁচাতে গেলে ফাতেমা আক্তারকেও পেটে ছুরি দিয়ে আঘাত করা হয়। এ ঘটনা দেখে মা রাজিয়া বেগম এগিয়ে আসলে তাকেও ছুরি দিয়ে আঘাত করা হয়।

স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক ফাতেমাকে মৃত ঘোষণা করেন। মা রাজিয়া আক্তারের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। আর ভাই রায়হানকে নরসিংদী জেলা হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

শিবপুর মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নরসিংদী সদর হাসপাতালে মর্গে পাঠানো হয়েছে। ডাকাতদের শনাক্ত ও গ্রেফতারে আমাদের অভিযান চলছে। পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।’

ব্রেকিংনিউজ/এনএসএন

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
সর্বাধিক পঠিত
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2