শিরোনাম:

জবি ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ, শহীদ মিনারে গ্রিল ভাঙচুর

আরমান হাসান, জবি করেসপন্ডেন্ট
৭ অক্টোবর ২০১৮, রবিবার
প্রকাশিত: 5:17
জবি ছাত্রলীগের দু’গ্রুপে সংঘর্ষ, শহীদ মিনারে গ্রিল ভাঙচুর

আধিপত্য বিস্তার ও সিনিয়রের হাতে প্রহৃত হওয়ার জের ধরে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় (জবি) শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি মো.তরিকুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক শেখ জয়নুল আবেদীন রাসেলের কর্মীদের মাঝে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে বিক্ষুব্ধ ছাত্রলীগ কর্মীরা শহীদ মিনারের গ্রিল ভেঙে প্রতিপক্ষকে আক্রমণের জন্য উদ্যত হয়।
  
সরেজমিনে ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় এক পরীক্ষার্থীকে র‌্যাগ দেয়ার সময় ১৩তম ব্যাচের সাধারণ সম্পাদক গ্রুপের এক ছাত্রলীগ কর্মীকে থাপ্পর দেয় ১২তম ব্যাচের সভাপতি গ্রুপের এক কর্মী। এরই জের ধরে রবিবার বেলা পৌনে ১২টায় কলা ভবনের সামনে সভাপতির কর্মী সমাজকর্ম বিভাগের ১২তম ব্যাচের নোমানকে পিটিয়ে আহত করে। 

পরে সভাপতি গ্রুপের কর্মীরা একত্রিত হয়ে এর সাধারণ সম্পাদকের কর্মী গণিত বিভাগের ১৩তম ব্যাচের জুবায়ের আল মাহমুদকে পিটিয়ে আহত করে। সংঘর্ষের সময় উভয় গ্রুপের কর্মীরা হাতে লাঠিসোটা আর রড নিয়ে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া করলে পুরো ক্যাম্পাসে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। 

এসময় তারা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ মিনারের গ্রিল ভেঙে প্রতিপক্ষের দিকে তেড়ে যায়। ফলে সাধারণ শিক্ষার্থীরা দিগ্বিদিক ছুটাছুটি করতে থাকে। পরে আহতদের বিশ্ববিদ্যালয় চিকিৎসা কেন্দ্রে প্রাথমিক চিকিৎসা দেয়া হয়। পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।  

এ বিষয়ে জানতে চাইলে শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখ জয়নুল আবেদীন রাসেল ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘একটি সামান্য বিষয় নিয়ে মারামারি হয়েছে। আমরা নিজেদের মধ্যে সমাধান করার চেষ্টা করছি। এটা তেমন বড় কোনো বিষয় ছিল না।’

তবে এ বিষয়ে জানতে জবি শাখা ছাত্রলীগ সভাপতি মো.তরিকুল ইসলামকে কয়েকবার ফোন দিলেও ফোন রিসিভ করেননি।

এ বিষয়ে সহকারী প্রক্টর ড মোস্তফা কামাল ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘আমি ও প্রক্টর স্যার ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। আামাদের যাওয়ার পর আর মারামারি হয়নি। তবে আমরা এখনও কোনও অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ব্রেকিংনিউজ/এএইচ/এমআর 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2