শিরোনাম:

১২ বছর প্রবাসে, তবুও ৮ মামলার আসামি

জীবন মুছা, চট্টগ্রাম
৭ অক্টোবর ২০১৮, রবিবার
প্রকাশিত: 12:18 আপডেট: 12:19
১২ বছর প্রবাসে, তবুও ৮ মামলার আসামি
প্রতীকী ছবি

১২ বছর আগে প্রবাসে গিয়েও ৮ মামলার আসামি হয়েছে চট্টগ্রামের পটিয়া উপজেলার যুবক শুক্কুর । বছরের পর বছর বিদেশে অবস্থান করলেও সম্প্রতি পুলিশের দায়ের করা ‘গায়েবি মামলা’ থেকে রেহাই পাননি তিনি।

পরিবারের অভিযোগ, স্বার্থান্বেষী একটি চক্রের মদদে তার বিরুদ্ধে নগরীর সদরঘাট থানায় ৭টি ও কোতোয়ালি থানায় একটিসহ মোট ৮টি মামলা দায়ের করেছে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ।

শনিবার (৬ অক্টোবর) শুক্কুরের বৃদ্ধা মা রশিদা বেগম সাংবাদিকদের কাছে এ অভিযোগ তুলে ধরেন। এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে গত ২৭ আগস্ট চট্টগ্রাম মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের কাছে একটি আবেদন করেছেন বলেও জানান রশিদা বেগম।

সাংবাদিকদের সামনে কান্না করতে করতে বৃদ্ধা রশিদা বেগম বলেন, ‘দেশে ব্যবসা-বাণিজ্য ছেড়ে এক যুগ আগে মধ্যপ্রাচ্য যায় তার ছেলে শুক্কুর। বিদেশে অবস্থানরত অবস্থায় তার নামে নগরীর সদরঘাট ও কোতোয়ালি থানায় মামলা দায়ের করা হয় ৮টি।’

একজন মানুষ বিদেশে থাকাকালীন সময় মামলার আসামি হয় কিভাবে প্রশ্ন রশিদার। এ ছাড়া কয়েকটি মামলায় তার বড় ছেলে ব্যবসায়ী সেকান্দরকেও জড়ানো হয়েছে। এসময় তিনি কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন।

‘মিথ্যা মামলা দিয়ে এক সন্তানকে আমার কাছ থেকে দূরে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। আরেক সন্তান ও তার পরিবার পুলিশের ভয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছে’ বলেন রশিদা বেগম।

রাশিদা বেগম বলেন, বিগত ইউপি চেয়ারম্যান নির্বাচনে পটিয়ার ১০ নং ধলঘাট ইউনিয়ন থেকে তার বড় ছেলে সেকান্দর নির্বাচনে অংশ নেন। নির্বাচনে তার এক নম্বর প্রতিশ্রুতি ছিল মাদকমুক্ত ইউনিয়ন প্রতিষ্ঠা। নির্বাচনের আগে ও পরে মাদক নির্মূলে ভূমিকা রাখায় এলাকার একটি মাদক চক্র নানাভাবে তার ছেলেদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে।

মামলার কারণে পুলিশও তার পরিবারকে হয়রানি করছে। দুই ছেলের বিরুদ্ধে করা মিথ্যা মামলার সুষ্ঠুভাবে তদন্তের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে দাবি জানান বৃদ্ধা রশিদা।

ব্রেকিংনিউজ/জিএম/এনএসএন

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2