শিরোনাম:

১৮ কোটি টাকার সোনাসহ ৫ চোরাকারবারী গ্রেফতার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
৪ অক্টোবর ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 8:35 আপডেট: 8:58
১৮ কোটি টাকার সোনাসহ ৫ চোরাকারবারী গ্রেফতার

১৮ কোটি টাকার স্বর্ণবারসহ আন্তর্জাতিক স্বর্ণ চোরাকারবারী চক্রের পাঁচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব। বৃহস্পতিবার (৪ অক্টোবর) সকালে মানিকগঞ্জে একটি দূরপাল্লার বাস থেকে তাদেরকে গ্রেফতারের পর ৪৩ কেজি সোনা উদ্ধার করা হয়।। 

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- ইয়াহিয়া আমিন (৪২), শেখ আমিনুর রহমান (৩৭), মনিরুজ্জামান রনি (৩৫), শেখ জাহিদুল ইসলাম (৩৩) ও জহিরুল ইসলাম তারেক (২৮)। 

বৃহস্পতিবার (৪ অক্টোবর) বিকালে রাজধানীর কারওয়ান বাজারে র‌্যাবের মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে র‌্যাব-২ এর পরিচালক লে. কর্ণেল মো. আনোয়ার-উজ-জামান এসব কথা বলেন। 

তিনি জানান, ‘গ্রেফতারকৃতদের তল্লাশি করে কোমরে থাকা বিশেষ কায়দার কালো বেল্ট থেকে ২৫৮টি সোনার বার উদ্ধার করা হয়। এর মধ্যে ২৪৩টি প্রচলিত সোনার বার। বাকি ১৫টি মোবাইল আকৃতির বারের প্রতিটির ওজন এক কেজি সোনার বার।’ উদ্ধার হওয়া স্বর্ণের আনুমানিক বাজারমূল্য ১৮ কোটি টাকা বলে জানান তিনি।  

র‌্যাব-২ পরিচালক জানান,  ‘ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের তরা ব্রীজের কাছে একটি দূরপাল্লার বাস তল্লাশি করে র‌্যাব সদস্যরা। র‌্যাব গাড়ির থামানোর পরপরই পাঁচ চোরাকারবারী গাড়ি থেকে নেমে দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে। এসময় র‌্যাব সদস্যরা তাদেরকে ঝাপটে ধরে ফেলে।’

চোরাকারবারীদের ব্যাপারে আনোয়ার উজ জামান জানান, ‘গ্রেফতারকৃতদের গডফাদার জাহিদুল ইসলাম। ভারত থেকে একজন ফোনের মাধ্যমে জাহিদুলকে পুরান ঢাকা থেকে সোনা নিয়ে আসতে বলে। জাহিদুল তার কথা মতো প্রতি সপ্তাহে সোনাগুলো এনে তার সহযোগীদের মাধ্যমে ভাগ করে দেয়। তার সহযোগীরা প্রতি সপ্তাহে একবার করে বেনাপোল যায়। এ কাজে তারা প্রতিমাসে ৩০/৪০ হাজার টাকা পায়। জাহিদ প্রায় দেড় বছর ধরে এই চক্রের সাথে জড়িত। ইয়াহিয়া সৌদি আরবে চাকরি করতেন। ছয় মাস আগে দেশে ফিরে এই চক্রের সাথে জড়িয়ে পড়ে।’ 

তিনি আরও জানান, ‘একটি সোনার বার পরীক্ষা করে দেখা গেছে ২৩ ক্যারেটের। স্বর্ণের বারের গায়ে দুবাই, অস্ট্রেলিয়া ও ইউএই লেখা রয়েছে। তাই ধারণা করা হচ্ছে সোনার বারগুলো ওইসব দেশ থেকে বাংলাদেশে এসেছে। বাংলাদেশকে ট্রানজিট করে পার্শ্ববর্তী দেশে পাচার হচ্ছিল।’

ব্রেকিংনিউজ/টিটি/জেআই

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2