শিরোনাম:

সুন্দরবনে আরও ৪টি পর্যটন কেন্দ্র হচ্ছে

পরিবেশ-পর্যটন ডেস্ক
৩ অক্টোবর ২০১৮, বুধবার
প্রকাশিত: 3:39
সুন্দরবনে আরও ৪টি পর্যটন কেন্দ্র হচ্ছে

পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যের একটি সুন্দরবন। এই ম্যানগ্রোভ বনকে কেন্দ্র করে প্রতি বছরই বিশ্বের নানা প্রান্ত থেকে ছুটে আসেন পর্যটকরা। কিন্তু সেখানকার ইকো-ট্যুরিজম ব্যবস্থা পর্যাপ্ত না হওয়ায় বাড়তি পর্যটকদের চাপ সামাল দেয়া কঠিন হয়ে পড়ছে। আর এ অবস্থায় সুন্দরবনে ঘুরতে আসা পর্যটকদের কথা মাথায় রেখে ২৪ কোটি ৯৯ লাখ টাকা ব্যয়ে নতুন চারটি পর্যটন কেন্দ্র তৈরির পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে।  

সুন্দরবন বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, এই চারটি ইকো-ট্যুরিজম কেন্দ্র গড়ে উঠবে বাগেরহাটের পূর্ব সুন্দরবন বিভাগের শরণখোলা রেঞ্জের আলীবান্ধা ও চাঁদপাই রেঞ্জের আন্ধারমানিক আর খুলনার পশ্চিম সুন্দরবন বিভাগের শেখেরটেক ও কৈলাশগঞ্জে। যেখানে হরিণ ও কুমিরসহ বন্যপ্রাণীর মুক্ত বিচরণ ব্যবস্থার পাশাপাশি থাকছে পর্যটকদের জন্য সর্বোচ্চ নিরাপত্তা ব্যবস্থা।

জানা গেছে, ইকো-ট্যুরিস্টরা যাতে নদী থেকে পর্যটন কেন্দ্রে সহজে ও নিরাপদে উঠতে পারে সেজন্য আধুনিক গ্যাংওয়ে বা জেটি তৈরি করা হবে। এছাড়া সুন্দরবনের প্রাকৃতিক চিরসবুজ রূপ দেখতে ওয়াচ টাওয়ার, পায়ে হাঁটার জন্য পর্যাপ্ত উডেন ট্রেইল ও বিশ্রামাগারসহ আধুনিক ওয়াশরুম নির্মাণ করা হবে। 

১৯৯৭ সালের ৬ ডিসেম্বর জীববৈচিত্র্যে ভরপুর সুন্দরবনের তিনটি পর্যটন এলাকাকে ৭৯৮তম ‘ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট’ ঘোষণা করে ইউনেস্কো। এর মধ্যে রয়েছে পূর্ব অভয়ারণ্য কটকা-কচিখালী, নীলকমল দক্ষিণ অভয়ারণ্য ও পশ্চিম অভয়ারণ্যের ১ লাখ ৩৯ হাজার ৭০০ হেক্টর বন। 

২০১৬-১৭ অর্থবছরে সুন্দরবনে দেশি-বিদেশি মিলিয়ে ১ লাখ ৮৩ হাজার ৪৯০ জন পর্যটক ঘুরতে এসেছিল। ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ২ লাখ ২১ হাজার ৯৬৯ জনে। গেল অর্থবছরে শুধু পর্যটন খাত থেকে সুন্দরবন বিভাগের রাজস্ব আয় হয় প্রায় ২ কোটি টাকা।

ফলে দেশের প্রাণ-প্রকৃতি সুন্দরবন রক্ষা ও সেখানে টাকা খরচ করে ঘুরতে আসা পর্যটকদের জন্য আধুনিক ব্যবস্থা গড়ে তোলা সময়ের দাবি হয়ে উঠেছে। পরিবেশবিদেরা মনে করেন, সুন্দরবনকে ঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করতে পারলে  এখান থেকে দেশের বড় অংশের রাজস্ব আহরিত হওয়া সম্ভব। পাশাপাশি বিশ্বজুড়ে বাংলাদেশের পর্যটনের প্রতি মানুষের আগ্রহও বাড়বে।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর 

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2