শিরোনাম:

‘যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছে তারাই জঙ্গিবাদের হোতা’

ইসাহাক আলী, নাটোর প্রতিনিধি
২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮, শুক্রবার
প্রকাশিত: 3:11
‘যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধীতা করেছে তারাই জঙ্গিবাদের হোতা’

সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেছেন,  ‘জঙ্গিবাদ নতুন সৃষ্ট কোনো বিষয় নয় এটা ৭১ সালেই তৈরি। যারা স্বাধীনতাযুদ্ধের বিরোধিতা করেছে, বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছে তারাই জঙ্গিবাদের হোতা। এরাই হলি আর্টিজান ও শোলাকিয়ায় হামলা চালিয়েছে। ২১ আগস্ট বোমা হামলা করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে হত্যার চেষ্টা চালিয়েছে। ৬৪ জেলায় এক সাথে বোমা হামলা করেছে। ২০১৪ সালে মানুষ পুড়িয়ে মেরেছে।’

তিনি বৃহস্পতিবার রাতে নাটোর শহরের কানাইখালী স্টেডিয়াম মাঠে চলনবিল আঞ্চলিক সাংস্কৃতিক উৎসব কমিটি আয়োজিত উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এসব কথা বলেন।

তিনি আরো বলেন,  ‘সংস্কৃতি চর্চা এমন একটি বিষয় যা সরকার একা করলে হবে না। কারণ, সংস্কৃতি চর্চাটি মাটি থেকে উঠে আসা, মানুষের জীবনের সাথে সম্পৃক্ত। মানুষ যদি উৎসাহিত না হয়, তারাই যদি অংশগ্রহণ না করে তাহলে সরকারের একার পক্ষে সম্ভব নয়। ভাল কিছু না দেখলে আমরা ভুল করে ফেলব। ভূল করলে প্রায়শ্চিত্ত করতে হবে সকলকে। আমাদের সিদ্ধান্ত নিতে হবে আমরা কি অসাম্প্রদায়িক সমাজ তৈরী করব- না জঙ্গিবাদকে লালন করব।’

‘সংস্কৃতির শেখর সন্ধানে-আঞ্চলিক ঐতিহ্যের মেলবন্ধনে’ এই প্রতিপাদ্য নিয়ে আয়োজিত তিন দিনের এই সাংস্কৃতিক উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠনে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক, নাটোর-৪ আসনের সংসদ সদস্য অধ্যাপক আব্দুল কুদ্দুস, নাটোর-২ আসনের সংসদ সদস্য শফিকুল ইসলাম শিমুল, জেলা আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট সিরাজুল ইসলাম, জেলা আওয়ামীলীগ যুগ্ম সম্পাদক সৈয়দ মোর্তুজা আলী বাবলু, আয়োজক কমিটির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট খগেন্দ্র নাথ রায়।

এ সময় আরো উপস্থিত ছিলেন নাটোরের জেলা প্রশাসক শাহিনা খাতুন, পুলিশ সুপার বিপ্লব বিজয় তালুকদার, জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সাজেদুর রহমান খান, নাটোর পৌর মেয়র উমা চৌধুরি জলি, জাতীয় রবীন্দ্র সঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের সভাপতি আমিনুল হক বাবুল প্রমুখ।

পরে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে শিল্পীরা সঙ্গীত ও চলন নাটুয়ার যাত্রা পরিবেশিত হয়। তিন দিনের এই সাংস্কৃতিক উৎসবে রাজশাহী বিভাগের নাটোর সহ ৮টি জেলা অংশ নিচ্ছে। এসব জেলার শিল্পী ও কলাকুশলীদের সমন্বয়ে তিন দিনের উৎসবে নাটক, সঙ্গীত, গম্ভীরা, বারসিয়া, আবৃত্তি, যাত্রা ও নৃত্য পরিবেশন এবং সংস্কৃতি বিষয়ে আলোচনা সভার আয়োজন রয়েছে।

ব্রেকিংনিউজ/এনএসএন

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2