শিরোনাম:

ময়মনসিংহে এবার কথিত সম্পাদকের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ময়মনসিংহ
২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 7:53 আপডেট: 7:55
ময়মনসিংহে এবার কথিত সম্পাদকের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা

ময়মনসিংহে কথিত ভারপ্রাপ্ত সম্পাদকসহ দুইজনের বিরুদ্ধে এবার তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ময়মনসিংহের বিজ্ঞ ১নং আমলী আদালতে ভুক্তভোগী আব্দুল্লাহ আল আমীন বাদী হয়ে মামলাটি দায়ের করেন। 

এসময় বিজ্ঞ বিচারক রোজিনা খান মামলাটি আমলে নেন দ্রুত তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন বলে নিশ্চিত করেছেন আইনজীবী অ্যাডভোকেট রাইসুল ইসলাম।

মামলায় আসামিরা হলেন, ময়মনসিংহের স্থানীয় ‘দৈনিক ময়মনসিংহ প্রতিদিন’ পত্রিকার ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক খাইরুল আলম রফিক ও ‘দৈনিক আলোকিত সকাল’ পত্রিকার ময়মনসিংহ প্রতিনিধি বদরুল আমীন।

অ্যাডভোকেট রাইসুল ইসলাম জানান, বিজ্ঞ আদালত মামলাটি আমলে নিয়ে তদন্ত পূর্বক দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য কোতয়ালী মডেল থানা পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।

এবিষয়ে মামলার বাদী আব্দুল্লাহ আল আমীন বলেন, আসামিরা মানহানিকর সংবাদ প্রকাশ করে ফেসবুকে প্রচার করায় বিজ্ঞ আদালতে আমি নিজেই বাদী হয়ে তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় একটি মামলা দায়ের করেছি। 

তিনি আরও জানান, আসামিরা সাংবাদিকতার নাম ভাঙ্গিয়ে অসংখ্য মানুষের বিরুদ্ধে মিথ্যা-বানোয়াট, মানহানিকর সংবাদ প্রকাশসহ চাঁদাবাজি ও হয়রানি করছে। এসব ঘটনায় ইতিপূর্বে নগরীর চরপাড়া এলাকার বাসিন্দা জাহাঙ্গীর আলম ফেরদৌস বিভাগীয় কমিশনার বরাবরে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানিয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন। নগরীর চরপাড়া এলাকার ঠিকাদার হাসেম আলী, মো. আনোয়ার হোসেন, ত্রিশাল নজরুল ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ মজিবুর রহমান, ফটো সাংবাদিক মো. কামাল’সহ অসংখ্য ভুক্তভোগী মামলা দায়ের করেছেন।

বাদী বলেন, এছাড়াও শম্ভুগঞ্জ লালকুঠি দরবার শরীফের বিরুদ্ধে মিথ্যা বানোয়াট ও ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত এনে সংবাদ প্রকাশ করায় গাজীপুর, নেত্রকোনা, শেরপুর এবং ময়মনসিংহে অসংখ্যা মামলা দায়ের হয়েছে ওই কথিত সম্পাদকের বিরুদ্ধে। 

ভুক্তভোগী আল আমীন ও মো. কামালের অভিযোগ, ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকের জুডিশিয়াল মুন্সিখানা থেকে গত বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি ওই পত্রিকার কর্তৃপক্ষকে ছাপাখানা ও প্রকাশনা আইন-১৯৭৩ এর পরিপন্থি কর্মকাণ্ড এবং পত্রিকাটিতে অসত্য হয়রানিমূলক সংবাদ পরিবেশনের অভিযোগে কেন পত্রিকার নিবন্ধন বাতিল করা হবে না- মর্মে ৭দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেন তৎকালীন জেলা প্রশাসক মো. খলিলুর রহমান। কিন্তু র্দীঘ সময় অতিবাহিত হলেও ওই নোটিশের কোনও জবাব দেয়া হয়নি; যা কর্তপক্ষের আদেশ অবমাননার শামিল। ফলে তৎকালীন জেলা প্রশাসক ওই বছরের ১৫ মার্চ দ্বিতীয় দফায় কেন পত্রিকার নিবন্ধন বাতিল করা হবে না- মর্মে ৫ দিনের মধ্যে কারণ দর্শানোর নোটিশ জারি করেন। কিন্তু অদৃশ্য কারণে আজ পর্যন্ত পত্রিকাটির বিরুদ্ধে কোনও ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।  
 
এবিষয়ে ময়মনসিংহের জেলা প্রশাসক ড.সুভাষ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, খুঁজ নিয়ে এবিষয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে। 

ব্রেকিংনিউজ/এমআর/আরএ

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2