শিরোনাম:

অথই নীড়-এর ৪টি কবিতা

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক
২ আগস্ট ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 10:39 আপডেট: 10:41
অথই নীড়-এর ৪টি কবিতা

১.
নাকফুলে জমে থাকে রাত।
সখা,তোর চোখে উড়ে যায় ঘুম।
রাত গুলো বেজে চলে জোনাকির পাখায়।
নক্ষত্রবাগানে খসে পড়ে রূপার নূপুর।
আঙুলে আঙুল লুকাই,ভেজা পাতায় রাত বাড়ে টুপটাপ।।

২.
দুপুরের রোদে ডুমুরের ছায়ায় আদর-আদর খেলে পুকুরের জল।
ডুমুরের ফলে ঝোল রাঁধে প্রতিবেশি।
মন্দিরে আমাদের বিগ্রহ দেবতা ফুল ফোটার অপেক্ষায় থাকেন।
মনসামঙ্গলের সুর শুনতে গিয়ে ঝরে পড়ে একলা কদম।
ডাকপিয়ন কতোকাল হলো বেহুলার ঘরে ফেরার কথা আর গাইতে পারেন না।
জলপোকাদের শরীরে সুগন্ধি সাবান,তালাগাছের ঘর।
দূর থেকে দূরে চলে যাচ্ছে ছিমছাম গ্রাম।পথ চলতে-চলতে আমরা চেনা রাস্তা ভুলে যাই।
মনখারাপ নিয়ে নিরবে শুকিয়ে যায় ফুলগাছেরা।
প্রিয় উঠোনে আগাছা গজানোর উৎসব।।

৩.
মাটি গলে যায়....
কবেকার কালীদহ বয়ে বেড়ায় বাণিজ্যের তরী।
বৃষ্টির দাগ আঁকা রয় বুকে।পুনরায় জেগে ওঠে প্রাচীন জনপদ।
মনসার বরে আজো ফোটে পদ্ম,শাপলা,
শালুক।
সনকা আজ প্রতিরমণীতে ছড়িয়েছেন নিজেকে।
মাটি প্রতিমা হয়ে ওঠে।
মঙ্গলঘটে ধান-দুর্বো দিয়ে ব্রতকথা বলেন আমাদের বড়জেঠি।
কংসের জল নির্বাক শুনে সব।
আমাদের বরণডালায় জমা থাকে আশীর্বাদ।
গলে যাওয়া মনসা প্রতিমা ক্ষত লুকায়।।

৪.
রাতের খাতায় খসে পড়ে বৃষ্টির ফুল।
তোমাদের উৎসবে কেনো এতো জল ডেকে আনো।
বহুজন্মভারে উবু হয়ে আসে পৃথিবী।
চালতাপাতায় রাতের পাখি সুর তোলে অবিরাম।
চোখের আয়নায় কতোদিন মেঘ জমেনা।মুখস্ত শ্লোকে মানুষেরা অচেনা হয়ে ওঠে।বিচ্ছিন্নতার গল্প শোনায়।
পাতা খসে পড়ে--
প্রতিটা মানুষ যে যার মতোন একা।ভীষণভাবে একা।।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2