শিরোনাম:

বিশ্বজুড়ে কমছে বন্যপ্রাণী

পরিবেশ ডেস্ক
৩১ জুলাই ২০১৮, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: 9:53 আপডেট: 5:03
বিশ্বজুড়ে কমছে বন্যপ্রাণী

নানা প্রতিকূল পরিবেশের মধ্যে বিশ্বজুড়েই কমছে বিভিন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণির সংখ্যা। এর মধ্যে কিছু কিছু প্রাণী আছে বিলুপ্তির পথেও। আমাদের প্রাকৃতিক সম্পদের মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ দখল করে আছে বিভিন্ন প্রজাতির বন্যপ্রাণী। তবে ক্রমাগত আবাসস্থল ধ্বংস, খাদ্যাভাস এবং অবৈধ শিকারের কারণে দিন দিন এদের সংখ্যা কমে যাচ্ছে।

পরিবেশ ও বন্যপ্রাণী গবেষকদের করা এক জরিপে দেখা গেছে, ১৯৭০ সালের পর থেকে পৃথিবীর বন্যপ্রাণীর সংখ্যা অন্তত ৬০ শতাংশ কমে গেছে। এর মধ্যে আফ্রিকার হাতি ও হাঙ্গরের সংখ্যা খুব দ্রুত কমছে। 

পরিসংখ্যানে বলা হচ্ছে, যেসব প্রাণী লেক, নদী ও জলাভূমিতে বাস করে তারা সবচেয়ে বেশি ক্ষতির মুখে পড়ছে। এমনটাই দাবি করেছেন 'দ্য লিভিং প্ল্যানেট রিপোর্ট' গবেষকরা।

পরিবেশবাদী গ্রুপ ডব্লিউডব্লিউএফ এবং যুলোজিক্যাল সোসাইটি অব লন্ডন বলছে, এই ধারা চলতে থাকলে, ২০২০ সাল নাগাদ পৃথিবীর দুই তৃতীয়াংশ বন্যপ্রাণী হারিয়ে যাবে।

বন ধ্বংস, জনসংখ্যা বৃদ্ধি, মানুষের অতিরিক্ত শিকার বা মাছ ধরা এবং জলবায়ু পরিবর্তনকে এজন্য দায়ী করেছেন গবেষকরা।

গত ৪০ বছরে বিশ্বে বন্য প্রাণী কমেছে ৫৮%। পরিসংখ্যানে বলা হচ্ছে যেসব প্রাণী লেক, নদী ও জলাভূমিতে বাস করে তারা বেশি ক্ষতির মুখে পরছে।

যদিও যে পদ্ধতিতে এই হিসেব বের করা হয়েছে সেটা নিয়ে এখন সমালোচনা হচ্ছে। দি লিভিং প্ল্যানেট রিপোর্ট প্রতি দুই বছর পর পর প্রকাশিত হয়, এর উদ্দেশ্য বিশ্বের বন্যপ্রাণীদের অবস্থান তুলে ধরা ।

২০১৪ সালে সবশেষ প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়েছিল গত ৪০ বছরে বন্যপ্রাণী অর্ধেকে নেমে এসেছে।

বনভূমি, জলাভূমি বা লোকালয় বিভিন্ন বন্যপ্রাণীর উপস্থিতি প্রাণবন্ত করে তোলে বাংলার প্রকৃতিকে। পরিবেশগত দিক থেকেও প্রতিটি বন্য প্রাণীর রয়েছে অপরিসীম অবদান। তবে মানুষের নানামুখী কর্মকাণ্ডে সংকুচিত হয়েছে বন্যপ্রাণীর আবাসস্থল, কমেছে এদের সংখ্যা।

কিছু প্রজাতি ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র গোষ্ঠীতে পরিণিত হয়েছে আর কিছু প্রজাতি সম্পূর্ণ বিলুপ্ত হয়ে গেছে। বন্যপ্রাণীদের যে প্রজাতিগুলো এখনো টিকে আছে সেগুলোও বর্তমানে বিপন্ন। এদের মধ্যে রয়েছে- হাতি, বাঘ, হনুমান, উল্লুক, শকুন, গেছো ব্যাঙ, মেছোবিড়াল, শুশুক, সাজারু প্রভূতি প্রাণী।

প্রতিনিয়ত আবাসস্থল ও প্রজননক্ষেত্র ধ্বংস হওয়ার কারণে প্রাণীজগৎ হয়ে পড়েছে কোণঠাসা ও বিপন্নগ্রস্থ যা তাদেরকে পৃথিবী থেকে বিদায়ের পথ সুগম করে দিচ্ছে।

ডব্লিউডব্লিউএফের বিজ্ঞান ও নীতিবিষয়ক প্রধান ড. মাইক ব্যারেট বলেন, ‘বর্তমান অবস্থা চলতে থাকলে বন্যপ্রাণীর সংখ্যা কমতেই থাকবে; কিন্তু এটাকে কোনো অবস্থাতেই চলতে দেওয়া যায় না। বন্যপ্রাণী কমার কারণগুলি আমরা জানি। একইসঙ্গে এসব প্রাণীর হ্রাসের প্রভাবও জানি। আমাদের এখনই কাজ শুরু কতে হবে। তবে সংগঠন দুইটির গবেষণার জন্য যে পদ্ধতির কথা বলা হয়েছে, তা নিয়ে সমালোচনাও রয়েছে।’
 
অপরদিকে কিছু কিছু প্রজাতির প্রাণীর সংখ্যা বাড়ছেও। ইতোমধ্যে দীর্ঘকায়ী পাণ্ডাকে বিপজ্জনক প্রজাতির বাইরে রাখা হয়েছে। ধারণা করা হয় বিশ্বে বাঘের সংখ্যাও বাড়ছে। তবে বাংলাদেশের বিখ্যাত রয়েল বেঙ্গল টাইগার ঝুঁকিতে রয়েছে। মনুষ্য সৃষ্ট নানা প্রতিকূলতার মুখে বাংলাদেশে বাঘের সংখ্যা কমছেই।

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2