শিরোনাম:

পাপিয়া গাঙ্গুলির ৩টি কবিতা

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক
২৫ জুলাই ২০১৮, বুধবার
প্রকাশিত: 7:40
পাপিয়া গাঙ্গুলির ৩টি কবিতা

১.
অচেনা অতিথি

রাত্তির হয়ে চুপটি করে
বারান্দায় এসে দাঁড়াস-
ঐ কোনাটায় ,অপেক্ষায়।
তুফান তখন ঘরের মাঝে,
দু পা ছুটে আলমারি,
এক পা পাশে ড্রেসিংটেবিল,
কাজল না, কাজল আজ বাদ-
তোর জামায় কালশিটে হয়।
চিকনকাজের সাদা শাড়িটাতে
মায়ার বুনন, ফরাসী পারফউম।
ঐ যে সে বছর উপহার দিলি
একমুঠো ছেলেমানুষি খুশীর মত।
আকাশময় ছড়ানো চাঁদনি উৎসব
আঁধার আলোয় বারান্দা লাজুক।
চৌকাঠ পেড়িয়ে, বাঁধন হারা..
অন্ধকারে ডুবিয়ে নিলি অচেনা বিশ্বাসে।
বারান্দা অন্ধকার মাখামাখি
তোর ঠোঁটে আমি তখন  ঝরনা।

২.
অপ্রেমিক তুই..

তোর প্রতিটা ছোঁয়া
ফুলের পাপড়ির মত
নিস্পাপ শৈশব;
ঘ্রাণ নিলে –
মিশে যায় তন্ত্রীতে।
তোর প্রতিটা কথা
ধর্মগ্রন্থের পঙতি যেন,
বিশ্বাসের সুর খেলে
জন্মাধিকারিক শর্তে
মনের সুড়ঙ্গে।
বাকি তুই কাল্পনিক
মাঠে নামা রামধনুর মত!
নেহাতই পড়ে থাকা সময়ের
পরীক্ষামূলক…
মিথ্যে বুনন।

৩.
অভিমানী

বারান্দার রেলিং পেরিয়ে
আলো, তারপর
ঘুমভাঙা আকাশ।
নীলের নদী, মেঘের ভেলা
আর একথালা রোদ…
ভেজা শাড়ি মেলার ফাঁকে
কখনও সবুজ টিয়া
একঝলক!
তবু চোখ খোঁজে
সেই
যাযাবর হাসিটা।
অপেক্ষার
এক পুকুর জলে
দিনরাত–
আকাশ ছোঁয়াছুঁয়ি।
একপশলা বৃষ্টির মতো
আসিস যদি
মেঘ নৌকো ভাসাবো
জমা অভিমানে।

(লেখিকার ফেসবুক থেকে নেয়া)

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Sidebar-1
Ads-Bottom-1
Ads-Bottom-2