Ads-Top-1
Ads-Top-2

বেশি সন্তান জন্ম দিলেই পুরস্কার মিজোরামে

ভারত ডেস্ক
১২ জুলাই ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 04:44:00
বেশি সন্তান জন্ম দিলেই পুরস্কার মিজোরামে

‘ইয়ং মিজো অ্যাসোসিয়েশন’ (ওয়াইএমএর) নামে মিজোরামের সবচেয়ে বড় ছাত্র ও নাগরিক সংগঠন রাজ্যবাসীকে বেশি করে সন্তান জন্ম দেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে। পাশাপাশি, বেশি সন্তানের জন্ম দিলে দম্পতিদের জন্য নগদ পুরস্কার ঘোষণা করেছে প্রভাবশালী গির্জাও।

অন্যদিকে, প্রতিবেশি আসামে নতুন জনসংখ্যা নীতিতে বলা হয়েছে, দুইয়ের বেশি সন্তান হলেই খোয়াতে হবে সরকারি চাকরি। দাঁড়ানো যাবে না ভোটে। মিলবে না কোনও সরকারি সুবিধা।

কিন্তু মিজোরামে চিত্রটা উল্টো। রাজ্য সরকারের হিসেবে, গত দশকে মিজোরামে জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার ছিল ২৯.১৮ শতাংশ। কিন্তু চলতি দশকে এখনও পর্যন্ত তা কমে ২৩.৪৮ শতাংশ হয়েছে।

অথচ বিশ্বের সর্ববৃহৎ পরিবারের বাস মিজোরামে। সেরচিপ জেলার বাকতাওং লাংনুয়াম গ্রামের বাসিন্দা ৭৪ বছর বয়সী চানা পাওলের ৩৯ জন স্ত্রীর ৯৪ জন ছেলেমেয়ে। নাতি-পুতি মিলিয়ে পরিবারের সদস্য সংখ্যা ১৮০ ছাড়িয়েছে। কিন্তু সংগঠনটি বলছে, সবাইকেই সমান ‘উদ্যোগী’ হতে হবে।

তাদের দাবি, সন্তানধারণের সিদ্ধান্ত দম্পতির ব্যক্তিগত। তার ‘মানবাধিকার’-এ অন্য কারও হস্তক্ষেপ অন্যায়। খ্রিস্টান প্রধান মিজোরামে ওয়াইএমএর এমন ব্যাখ্যায় বিস্মিত বিভিন্ন মহল। গির্জার প্রভাব রয়েছে ওয়াইএমএর উপর।

ওয়াইএমএর হিসেবে, মিজোরামে জনসংখ্যা ১২ লক্ষ। প্রতি বর্গকিলোমিটারে জনঘনত্ব মাত্র ৫২। জাতীয় গড় ৩৮২। সংগঠনের সভাপতি ভানলালরুয়াতা বলেন, ‘মিজোদের সংখ্যা বাড়ানো খুব দরকার। এত কম মানুষ থাকলে কোনও ক্ষেত্রেই মিজোদের উন্নতি হবে না।’

মিজোরাম প্রেসবিটেরিয়ান গির্জা ইতিমধ্যেই জননিয়ন্ত্রণ নীতির বিরোধিতা করে তাকে ‘ঈশ্বরবিরোধী’ আখ্যা দিয়েছে। দক্ষিণ মিজোরামের ব্যাপটিস্ট গির্জা চতুর্থ সন্তানের জন্ম হলে চার হাজার ও পঞ্চম সন্তান জন্মালে বাবা-মাকে পাঁচ হাজার টাকা নগদ পুরস্কার দেবে। সূত্র: আনন্দ বাজার

ব্রেকিংনিউজ/আরএ

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2