Ads-Top-1
Ads-Top-2

প্রধানমন্ত্রী, আমার ছেলেকে ভিক্ষা দ্যান: রাশেদের মা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১১ জুলাই ২০১৮, বুধবার
প্রকাশিত: 08:03:00 আপডেট: 08:12:00
প্রধানমন্ত্রী, আমার ছেলেকে ভিক্ষা দ্যান: রাশেদের মা

প্রধানমন্ত্রীর কাছে নিঃশর্ত জামিন চেয়ে ছেলেকে ভিক্ষা চেয়েছেন কোটা আন্দোলনের নেতা রাশেদের মা সালেহা বেগম। সেইসঙ্গে তার মামলার চলমান রিমান্ডও বাতিলের দাবি জানান তিনি।

বুধবার (১১ জুলাই) বিকেল সাড়ে ৫টায় বালাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনে (ক্র্যাব) সংবাদ সম্মেলনে সালেহা বেগম এ দাবি জানান।

গতকাল মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টার দিকে রাজধানীর মিন্টো রোডে ডিবি অফিসে রাশেদকে নেয়ার পথে ভাগ্যক্রমে ছেলের সঙ্গে দেখা হয়েছিল। সে সময় রাশেদ তার মাকে অনুরোধ করে বলেন, ‘মা তুমি সংবাদ সম্মেলন করো, আমার রিমান্ড বাতিল চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে মুক্তি চাও’। 

সংবাদ সম্মেলনে রাশেদের মা বলেন, ‘আমার বাবুটারে অনেক মারছে। আমার ছেলে আমাকে বলেছে মা তুমি সংবাদ সম্মেলন করো, আমাকে যেন আর রিমান্ডে না নেয়’। 

রাশেদের সঙ্গে দেখা হওয়ার সময় পুলিশ তাকে ধরতেও দেয়নি অভিযোগ করে তিনি বলে, ‘বাবুটারে অন্যের বাসায় কাজ করে মানুষ করছি। পড়ালেখা শিখাইছি। কিন্তু পুলিশ আজ আমার চোখের সামনে দিয়ে তাকে নিয়ে গেলো। এবার আমাকে ধরতেও দেয়নি।’

আক্ষেপ প্রকাশ করে সালেহা বেগম বলেন, ‘পোলাডা চাকরি পাইবে বইল্যা সবার সাথে কোটার আন্দোলন করছে। কিন্তু কি পাইলো, হাতকড়া পুরস্কার পাইলো। প্রধানমন্ত্রী আপনি তো দেশের মায়ের মতোন। আমার সন্তানটারে ফেরত চাই, তার মুক্তি দ্যান। আমার ছেলেকে ভিক্ষা দেন। সে জামিন পাইলে আর আন্দোলন করবো না, পড়ালেখা করবো। ওর জামিন বাতিলের ব্যবস্থা আপনি করেন, ও যেন আগের মতোন স্বাভাবিক জীবনযাপন করতে পারে।’

রাশেদের মা আরও বলেন, ‘আমার সন্তানরে আমার কোলে ফেরত চাই। আমার মণির মুক্তি চাই। আমার সোনা কোনো রাজনৈতিক দলের কর্মী নয়। আমি রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়াচ্ছি। আমাকে কেউ কোনো সাহায্যও করছে না।’ 

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত রাশেদের স্ত্রী রাবেয়া আলো অভিযোগ করেন, ‘রাশেদকে গ্রেফতারের পর থেকে আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর পক্ষ থেকে তাদের কোনো ধরনের সহযোগিতা করা হচ্ছে না। তারা প্রতিদিন সকালে বের হন এবং রাত পর্যন্ত মিন্টো রোডে রাশেদকে এক নজর দেখার জন্য সেখানে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করেন।’ 

তার স্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা তার নিঃশর্ত মুক্তি চাই। তার নামে যতো মামলা আছে সকল মামলা প্রত্যাহার করে তাকে নিঃশর্ত জামিন দেওয়া হোক। জামিনের পর সে যেন নিরাপদে চলতে ফিরতে পারে সে নিশ্চয়তাও চাই। সে জামিন পেলে আর আন্দেলন করবে না।’

রাশেদকে গ্রেফতারের পর বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে তার পরিবারকে কোনো ধরনের সাহায্য করা হয়নি বলে অভিযোগ করেন রাশেদের স্ত্রী রাবেয়া আলো।

ব্রেকিংনিউজ/টিটি/এমআর

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2