Ads-Top-1
Ads-Top-2

শিক্ষকদের অনশন ভাঙালেন ৪ বিশিষ্টজন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
১১ জুলাই ২০১৮, বুধবার
প্রকাশিত: 06:21:00 আপডেট: 08:48:00
শিক্ষকদের অনশন ভাঙালেন ৪ বিশিষ্টজন
ছবি: সালেকুজ্জামান রাজীব

বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আশ্বাসের কথা জানিয়ে লাগাতার অবস্থান ও আমরণ অনশনকারী শিক্ষক-কর্মচারীদের অনশন ভাঙিয়েছেন ৪ বিশিষ্টজন। 

বুধবার (১১ জুলাই) বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের ট্র্রাস্টি জিয়াউদ্দিন তারিক আলী ও ড. সারওয়ার আলী অনশনরত শিক্ষক-কর্মচারীদের মুখে পানি তুলে দিয়ে তাদের অনশন ভাঙান। 



এর আগে বিকেল ৩টার দিকে অনশনস্থলে উপস্থিত হন জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামান। এসময় তিনি সংসদে প্রধানমন্ত্রীর দেওয়া আশ্বাসের কথা শিক্ষক নেতাদের সামনে তুলে ধরে বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সংসদে যে বিবৃতি দিয়েছেন, তাতে আমরা আপনাদের যে সমস্যা- তার সমাধানের আশা দেখতে পাই। আপনারা যে দাবি-দাওয়া জানিয়েছেন, সেটা সামনে রেখে আশা করি শিক্ষা মন্ত্রণালয় এমন একটা উপায় বের করবে, যাতে এই অবস্থার উপযুক্ত সমাধান পাওয়া যাবে।’

অনশনরত শিক্ষকদের উদ্দেশ্যে আনিসুজ্জামান বলেন, ‘আমি আপনাদের একজন সহকর্মী হিসেবে এখানে উপস্থিত হয়েছি। আপনাদের কাছে আমার বিনীত অনুরোধ, আপনারা অনশন-ধর্মঘট আর প্রলম্বিত না করবেন না। আপনারা অনশন ভঙ্গ করুন। ছাত্রছাত্রীদের ভবিষ্যতের কথা ভাবুন। তাদের লেখাপড়ার যে ক্ষতি হচ্ছে সেই কথা একবার ভাবুন।’



এর পর পরই নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান শিক্ষক কর্মচারী ফেডারেশন সভাপতি অধ্যক্ষ গোলাম মাহমুদুন্নবী ডলার অনশন ভাঙাতে আসা নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান।

জাতীয় অধ্যাপক আনিসুজ্জামানের উদ্দেশ্যে মাহমুদুন্নবী ডলার বলেন, ‘আপনি আমাদের শিক্ষকদের শিক্ষক। আপনি এসেছেন, অন্যান্য নেতৃবৃন্দরা এসেছেন। প্রধানমন্ত্রী যে আশ্বাস দিয়েছেন, আমরা আশা করি তিনি তা বাস্তবায়ন করবেন।’

শিক্ষক নেতাদের উদ্দেশ্যে ডলার বলেন, ‘আজকে জাতীয় অধ্যাপক এসেছেন। উনি যা বলবেন, আমরা তাই পালন করব।’



উল্লেখ্য, এমপিওভুক্তির দাবিতে গত ১০ জুন থেকে রাজধানীর জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের ফুটপাতে অবস্থান নিয়ে আন্দোলন করে আসছেন নন-এমপিও শিক্ষক-কর্মচারীরা। শেষ ১৭ দিন ধরে তারা ‘আমরণ অনশন’ কর্মসূচি চালিয়ে যাচ্ছিলেন। এর মধ্যে অন্তত শতাধিক শিক্ষক-কর্মচারি অনশনরত অবস্থায় অসুস্থ হন।  

ব্রেকিংনিউজ/এমআর

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2