Ads-Top-1
Ads-Top-2

কুবিতে বাসের চাপায় আহত শিক্ষার্থী

জাহিদুল ইসলাম, কুবি প্রতিনিধি
১০ জুলাই ২০১৮, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: 06:20:00
কুবিতে বাসের চাপায় আহত শিক্ষার্থী<br />

মঙ্গলবার (১০ জুলাই) কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ে (কুবি) আবারও ভাড়ায় চালিত বিআরটিসি বাসের চাপায় গুরুতর আহত হয়েছে কুবির মাহামুদুল হাসান নামের এক শিক্ষার্থী। এ ঘটনায় কুবির পরিবহন ব্যবস্থা ও প্রশাসনকেই দায়ী করছে শিক্ষার্থীরা। বার বার এমন ঘটনা ঘটার পরেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন নির্বাক থাকায় ক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, মঙ্গলবার দুপুর ২ টায় সময় অনুযায়ী ক্যাম্পাস থেকে ছেড়ে যাচ্ছিল বাসগুলো। বাসগুলো পরিবহন লট থেকে ঘুরিয়ে ক্যাম্পাসের প্রধান সড়কে ওঠার সময় বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য ভাড়ায় চালিত বিআরটিসি’র একটি বাস (ঢাকা মেট্রো গঃ ১১-৫৫২২) ধাক্কা দেয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের ২০১৭-১৮ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী মাহামুদুল হাসানকে। এ সময় মাহামুদুল মাঠে পড়ে যায়। এ দৃশ্য প্রত্যক্ষ করার পরেও বাস চালক কোনো কিছু তোয়াক্কা না করে মাহমুদুলের পায়ের উপর দিয়ে বাস চালিয়ে যায়। এতে মাহমুদুল পায়ের বেশ কয়েক অংশে কেটে প্রচুর রক্তক্ষরণ হতে থাকে। মাহমুদুলের চিৎকারের আওয়াজ শুনে আশেপাশে থাকা শিক্ষার্থীরা তাকে রক্তাক্ত অবস্থায় সেখান থেকে উদ্ধার করে বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল সেন্টারে নিয়ে যায়। 

পরে মেডিকেল সেন্টারের কর্তব্যরত ডাক্তাররা তার পায়ে ড্রেসিং ও ব্যন্ডেজ করে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে ট্রান্সফার করে। বিশ্ববিদ্যালয় মেডিকেল সেন্টারের কর্তব্যরত চিকিৎসকরা জানান, ‘মাহমুদুলের ডান পায়ের বেশ কয়েকটি জায়গায় জখম হয়েছে। পায়ের পাতার হাড়গুলো ভেঙ্গে গেছে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তার অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে তাকে কুমিল্লা মেডিকেল কলেজে পাঠানো হয়েছে।’

উল্লেখ্য, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের জন্য ভাড়ায় চালিত বি.আর.টি.সি’র বাস ও চালকের বিরুদ্ধে শিক্ষার্থীদের নানা সময়ে বিভিন্ন অভিযোগ থাকলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন কোনো কর্ণপাত করেনি। যার ফলে প্রতিনিয়তই ঘটে যাচ্ছে এমন দুর্ঘটনা। এবছরের ২৯ মার্চ কুমিল্লা কোটবাড়িতে বি.আর.টি.সি (ঢাকা মেট্রো বঃ ১১-৪৯৭৬) বাসের চাপায় গুরুতর আহত হয় বিশ্ববিদ্যালয় আইন বিভাগের ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী শিহাব উদ্দিন। এছাড়াও বিভিন্ন সময়ে বি.আর.টি.সি’র ত্রুটিপূর্ণ বাস এবং চালকদের বেপরোয়া গতির কারণে ছোট-বড় দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীসহ পথচারীরা।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কয়েকজন শিক্ষার্ধী তাদের ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রতিবছর শিক্ষার্থীর সংখ্যা বাড়লেও বাসের সংখ্যা বাড়ানো হচ্ছে না। যেখানে কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের জন্য শিতাতপ নিয়ন্ত্রিত ও হিনো বাস রয়েছে সেখানে শিক্ষার্থীরা চলাচল করে বি.আর.টি.সি’র পরিত্যক্ত বাসে। বাস সংকটের কারণে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই এ পরিত্যক্ত বাসে আমাদের প্রতিদিন চলাচল করতে হয়। এ নিয়ে প্রশাসনকে বিভিন্ন সময়ে বাস বাড়ানো, বাস পরিবর্তন ও দক্ষ চালকের দাবিতে আবেদন করা হলেও আদৌ তার কোন পরিবর্তন হয়নি। তাই আমরা চাই বাস সংক্রান্ত সমস্যার দ্রুত সমাধান হোক।’

এ বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর ও পরিবহন কমিটির আহবায়ক কাজী মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন বলেন, ‘বিষয়টি আমি জেনেছি এবং এ সংক্রান্ত একটি লিখিত অভিযোগও পেয়েছি। উপাচার্য স্যারের সাথে আলোচনা করে এ নিয়ে যত দ্রুত সম্ভব যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

ব্রেকিংনিউজ/এসএএফ

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2