Ads-Top-1
Ads-Top-2

যশোরে বিমান বিধ্বস্ত: দুই বৈমানিকের দেহের টুকরো উদ্ধার

কাজী আশরাফুল আজাদ, যশোর প্রতিনিধি
২ জুলাই ২০১৮, সোমবার
প্রকাশিত: 07:41:00 আপডেট: 09:11:00
যশোরে বিমান বিধ্বস্ত: দুই বৈমানিকের দেহের টুকরো উদ্ধার

যশোরে বিমান বাহিনীর প্রশিক্ষণ বিমান বিধ্বস্তের ঘটনায় নিহত দুই পাইলটের দেহের অংশবিশেষ উদ্ধার করা হয়েছে। দুই জনের মধ্যে দেহের টুকরোগুলো কার তা ডিএনএ পরীক্ষার জন্য যশোর জেনারেল হাসপাতালে রাখা হয়েছে।
 
রবিবার (০১ জুলাই) রাত ৯টা ২০ মিনিটে যশোরের মতিউর রহমান বিমান ঘাঁটি থেকে একটি প্রশিক্ষণ বিমান উড্ডয়ন করে। এর কিছুক্ষণ পর সেটি যশোর সদর উপজেলার ফরিদপুর গ্রামের বুকভরা বাওড়ের মধ্যে আছড়ে পড়ে।
 
এঘটনায় উদ্ধার তৎপরতা সোমবার (০২ জুলাই) সন্ধ্যা পর্যন্ত চলেছে।
 
এই দুই বৈমানিকের একজন হলেন, স্কোয়াড্রন লিডার সিরাজুল ইসলাম (৩৫)। তিনি ফরিদপুর সদর উপজেলার পূর্ব গোয়ালচামট গ্রামের নুরুল ইসলাম ও শাহিদা ইসলাম দম্পতির ছেলে। অপরজন হলেন, জামালপুরের সরিষাবাড়িয়া উপজেলার কৃষ্ণপুর গ্রামের শফিউদ্দিন ও রোকেয়া বেগম দম্পতির ছেলে এনায়েত কবির পলাশ (৩৪)।
 
যশোর কোতয়ালি থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসার্স ইনচার্জ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল বাশার মিয়া তাদের পরিচয় নিশ্চিত করেছেন।
 
যশোরে বিমান বাহিনীর ওয়ারেন্ট অফিসার ইলিয়াস হোসেন সাংবাদিকদের বলেছেন, রবিবার রাত ৮টা ৫১ মিনিটের দিকে যশোর মতিউর রহমান বিমান ঘাঁটি থেকে বিমান বাহিনীর কেএইট ডাব্লিউ প্রশিক্ষণ বিমানটির উড্ডয়ন হয়। বিমানে দুইজন বৈমানিক ছিলেন। ৪দিন আগে তারা যশোরে আসেন। রাত সাড়ে নয়টার দিকে বিমানটি কন্ট্রোলরুম থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। পরে জানতে পারেন মতিউর রহমান বিমান ঘাঁটি থেকে আনুমানিক ১০ কিলোমিটার পূর্বে চান্দুটিয়া-আরিচপুর এলাকার বুকভরা বাওড়ের মধ্যে বিমানটি বিধ্বস্ত হয়েছে।
 


বিমানের ভাঙ্গা অংশ রবিবার রাত থেকে সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত তল্লাশি করে উদ্ধার করা হয়েছে। খুলনা থেকে নৌবাহিনীর একটি প্রশিক্ষিত ডুবুরি দল এবং ফায়ার সার্ভিস অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের আরও একটি প্রশিক্ষিত ডুবুরি দল ঘটনাস্থলে এসে সারাদিন তল্লাশি করেছে।
 
যশোর কোতয়ালি থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসার্স ইনচার্জ পরিদর্শক (তদন্ত) আবুল বাশার মিয়া বলেছেন, ডুবুরিদল বিমানের ধ্বংসাবশেষ এবং দুই বৈমানিক খোঁজ করেছে। তারা বিমানের অনেক ভাঙ্গা টুকরো উদ্ধার করেছে। আর বৈমানিকের শরীরের কিছু টুকরো উদ্ধার হয়েছে। কিন্তু কার শরীরের টুকরো তা বোঝা যাচ্ছে না। মাংশের টুকরো গুলো হাসপাতালে রাখা হয়েছে।
 
সোমবার সন্ধ্যার দিকে যশোর ফায়ার সার্ভিসের সিনিয়র স্টেশন অফিসার জাহাঙ্গীর হোসনে জানিয়েছে, তাদের ১০ জনের একটি ডুবুরি দল রবিবার রাত থেকে কাজ করছে। দুই বৈমানিকের মরদেহ খুঁজতে এয়ার লিফটিং ব্যাগ বাওড়ের পানিতে ফেলা হয়েছে। বিমান বাহিনীর একটি হেলিকপ্টার ব্যাগটি ফেলে। পানির নিচে যে টুকরো গুলো আছে তা উপরে ভাসিয়ে রাখা এয়ার লিফটিং ব্যাগের কাছ। এখন এই ব্যাগ দিয়ে দেহাবশেষ খোঁজার কাজ চলছে। এখনও উদ্ধার কাজ শেষ করার কোনও ঘোষণা আসেনি। তবে ঘটনা অনুসন্ধানে একটি উচ্চ পর্যায়ের কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
 
ব্রেকিংনিউজ/আরএ

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2