Ads-Top-1
Ads-Top-2

গ্রীষ্মের ফল করমচা'র স্বাস্থ্যগুণ

স্বাস্থ্য ডেস্ক
৭ জুন ২০১৮, বৃহস্পতিবার
প্রকাশিত: 11:17:00

করমচা, বাংলাদেশে বহুল প্রচলিত গ্রীষ্মকালীন টক জাতীয় একটি ফল। এর বৈজ্ঞানিক নাম ‘ক্যারিসা ক্যারোন্ডাম’। ইংরেজিতে একে Bengal currant বা Christ's thorn বলা হয়। 

গুল্মজাতীয় করমচা উদ্ভিদটি এশিয়া, আফ্রিকা এবং অস্ট্রেলিয়া মহাদেশে পাওয়া যায়। কাঁচা অবস্থায় করমচা দেখতে সবুজ, আর পাঁকা করমচা ম্যাজেন্ডা বা লাল রং ধারণ করে। স্বাদে টক করমচা খাওয়া গেলেও, এর গাছ বিষাক্ত। করমচার ঝোপ দেখতে বেশ সুন্দর। 

কাঁটায় ভরা এ গাছটি গ্রাম থেকে এখন শহরেও চাষ হয়। কারও কারও বাড়ির ছাদ কিংবা বারান্দায়ও দেখা মেলে করমচার। সাদা ও ফিকে গোলাপি রঙের মিষ্টি গন্ধযুক্ত করমচা ফুল দেখতে কিছুটা কুন্ধ ফুলের মতো। ফেব্রুয়ারি  মাসে গাছে ফুল আসে এবং ফল ধরে এপ্রিল-মে মাসে। বর্ষাকালে ফল পাঁকে। উঁচু জমিতেই করমচা ভাল চাষ হয়, তবে নিচু জমিতেও চাষ করতে সমস্যা নেই।

করমচা ফল যমন পুষ্টিগুণে সমৃদ্ধ, তেমনি এর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা ভাল। প্রতি ১০০ গ্রাম করমচায় আছে,

করমচা’র পুষ্টি গুণ:

শর্করা- ১৪ গ্রাম, প্রোটিন- ০.৫ গ্রাম, 
ভিটামিন এ- ৪০ আইইউ, ভিটামিন সি- ৩৮ মিলিগ্রাম, 
রিবোফ্লেভিন- ০.১ মিলিগ্রাম, নিয়াসিন- ০.২ মিলিগ্রাম,
আয়রন- ১.৩ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেসিয়াম-১৬ মিলিগ্রাম,
পটাশিয়াম-২৬০ মিলিগ্রাম, কপার-০.২ মিলিগ্রাম। 

করমচা শরীরের জন্য ভাল হলেও, যাদের রক্তে পটাশিয়ামের মাত্রা বেশি, তাদের করমচা না খাওয়াই ভাল। করমচা অনেক রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে। তবে ইদানিং বাজারে প্যাকেটে করে চেরি ফলের নামে কৃত্রিম রং দেয়া করমচা বিক্রি হয়। এটি স্বাস্থ্যের জন্য খুব ক্ষতিকর।


করমচা ফলের উপকারিতা:

* ভিটামিন ‘সি’ সমৃদ্ধ করমচা মুখের রুচি ফেরাতে দারুণ কার্যকরী।
* রক্ত চলাচল স্বাভাবিক রেখে হৃৎপিণ্ডের সুরক্ষা দেয়।
* যকৃত ও কিডনির রোগ প্রতিরোধে সহায়তা।
* ডায়াবেটিস ও হার্টের রোগীদের অন্যতম উপকারী ফল করমচা।  
* ওষুধের বিকল্প হিসেবে কৃমিনাশকের কাজ করে।
* করমচা চর্বি এবং ক্ষতিকর কোলেস্টেরল কমায়।
* ত্বকের সুস্থতা ও রোগ প্রতিরোধে বেশ কার্যকর।
* অতিরিক্ত ওজন কমায়।
* বাতরোগ কিংবা ব্যথাজনিত জ্বর নিরাময়ে করমচা বেশ উপকারী।
* স্কাভি, দাঁত ও মাঢ়ির নানা রোগ প্রতিরোধে সাহায্য করে।

ব্রেকিংনিউজ/এসএএফ

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2