শিরোনাম:
Ads-Top-1
Ads-Top-2

জাবি আওয়ামীপন্থি শিক্ষকদের ফের উপাচার্যের কার্যালয় ঘেরাও

জাবি করেসপন্ডেন্ট
২৭ মে ২০১৮, রবিবার
প্রকাশিত: 05:38:00 আপডেট: 05:51:00
ছবি: ব্রেকিংনিউজ

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) ফের উপাচার্যের কার্যালয় ঘেরাও করেছে আওয়ামীপন্থি শিক্ষকদের একাংশ। 

রবিবার (২৭ মে) সকাল সাড়ে ৮টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরাতন প্রশাসনিক ভবনের সামনে অবস্থান নেয় ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’। এতে প্রায় ৫০ শিক্ষক উপস্থিত ছিলেন। এ কর্মসূচির ফলে কার্যালয়ে প্রবেশ করতে পারেনি উপাচার্য। 

এর আগে এক সংবাদ সম্মেলনে নতুন সিন্ডিকেট সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত সব ধরনের নতুন নিয়োগ প্রতিহত করার ঘোষণা দেন উপাচার্যবিরোধী শিক্ষকদের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’। তার অংশ হিসেবে এই ঘেরাও কর্মসূচি পালিত হয়েছে বলে জানান সংগঠনটির সম্পাদক ও মুখপাত্র সহযোগী অধ্যাপক ফরিদ আহমেদ। 

তিনি ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘চার মাস যাবত সিন্ডিকেট সভা আটকে আছে। ফলে শিক্ষকদের পদোন্নতি, শিক্ষার্থীদের সনদ ও ডিগ্রিসহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় স্থগিত রয়েছে। স্থগিত বিষয়ে সমাধান না করে নতুন নিয়োগ দেওয়া অনুচিত।’

এদিকে পূর্ব নিধারিত পদার্থবিজ্ঞান বিভাগের ৪টি অস্থায়ী প্রভাষক পদে নিয়োগের সিলেকশন বোর্ড স্থগিত করা হয়। সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত অপেক্ষা করার পর ভাইভা অনুষ্ঠিত না হওয়ায় ভোগান্তিতে পড়েন মৌখিক পরীক্ষা দিতে আসা প্রার্থীরা। 

বিকেল ৩টায় ডেপুটি রেজিস্টার (টিচিং) মুহাম্মাদ আলী ভাইভা স্থগিতের কথা জানালে ক্ষোভ প্রকাশ করে চাকুরি প্রার্থীরা। 

এ সময় জাপান থেকে আসা চাকুরি প্রার্থী মাসুদুর রহমান লিখন ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘শিক্ষকদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে পূর্ব নির্ধারিত বোর্ড স্থগিত হওয়ায় আমরা মর্মাহত। আমাদের আগে থেকে জানিয়ে দিলে বিদেশ থেকে এসে হয়রানি ও ভোগান্তির শিকার হওয়া লাগতো না।’

লিখনের মতো অস্ট্রেলিয়াসহ বেশ কয়েকটি দেশ থেকে প্রার্থীরা মৌখিক পরীক্ষায় অংশ নিতে এদিন ক্যাম্পাসে উপস্থিত হন। 
 
এ বিষয়ে উপাচার্য অধ্যাপক ড. ফারজানা ইসলাম ব্রেকিংনিউজকে বলেন, ‘অবরোধকারী শিক্ষাকরা পূর্ব ঘোষণা ছাড়া তাৎক্ষণিক সিদ্ধান্তে উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ভাবে সিলেকশন বোর্ড স্থগিত করেছে। এতে চাকুরিপ্রার্থীরাসহ বিশেষজ্ঞরাও বিরক্ত ও অপমানিত হয়েছেন। যা আমদের বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাবমূর্তি চরমভাবে বিনষ্ট হয়েছে।’ এমন কর্মকাণ্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকদের দ্বারা হওয়া উচিত নয় বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

ব্রেকিংনিউজ/এমএ/এমআর

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
সর্বশেষ খবর
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2