Ads-Top-1
Ads-Top-2

সুন্দরগঞ্জে পুলিশ গ্রামবাসী সংঘর্ষ, আহত ৩০

গাইবান্ধা প্রতিনিধি
১০ এপ্রিল ২০১৮, মঙ্গলবার
প্রকাশিত: 11:56:00 আপডেট: 11:58:00
সুন্দরগঞ্জে পুলিশ গ্রামবাসী সংঘর্ষ, আহত ৩০

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলায় পুলিশের সঙ্গে গ্রামবাসীর দফায় দফায় ধাওয়া, পাল্টা ধাওয়া ও সংঘর্ষে কমপক্ষে ৩০ জন আহত হয়েছে। 

মঙ্গলবার বিকেলে তারাপুর ইউনিয়নের চর খোর্দা গ্রামে এই সংঘর্ষ শুরু হয়। পরে রাত নয়টার দিকে সেখানের একটি আনসার ক্যাম্পে আগুন ও দু’টি রাইফেল লুট করে গ্রামবাসী, এমন খবর পাওয়া গেছে।

আহতরা হলেন মুমিন, মতিয়ার, সালমা, সোলেমান, আরজিনা, রাজ্জাক, ‍রুবিয়া, মোজা মন্ডল, মুক্তা বেগম,শরিফুল ইসলাম, রেজাউল হক,মিনা আক্তার ও আশরাফুল মন্ডল। বাকিদের নাম পরিচয় এখনও জানা যায়নি। 

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর আহত সদস্যরা হলেন পুলিশের এসআই আলম বাদশা, বাবুল, ওয়াহেদ আলী, এএসআই শরিফুল, কনস্টেবল মোজাম্মেল ও সাজ্জাদ। 

আহতরা পার্শ্ববর্তী কুড়িগ্রাম, উলিপুল, রংপুরের পীরগাছাসহ বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছে।

উপজেলা প্রশাসন, পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, ২০০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন সৌর বিদ্যুৎ প্রকল্প স্থাপনের জন্য এক হাজার একর জমি প্রয়োজন। এজন্য গত বছর থেকে চর খোর্দা ও লাটশালা এলাকায় জমি ক্রয় শুরু করে তিস্তা সোলার লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান। ইতোমধ্যে সেখানে ৭শ’ একর জমি কেনা হয়েছে। ক্রয়কৃত জমিতে এই প্রকল্পের মাটি ভরাট কাজ চলছে। 

মঙ্গলবার বিকেল মাটি কাটা নিয়ে প্রকল্প কর্মকর্তা ও স্থানীয় মানুষদের মধ্যে বাকবিতন্ডা হয়। একপর্যায়ে এলাকাবাসী প্রকল্প কর্মকর্তাদের অবরুদ্ধ করে রেখে পাওয়ার প্লান্ট স্থাপনায় হামলা, ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করে। এতে ওই সৌর বিদ্যুৎ প্রকল্পের মূল্যবান যন্ত্রপাতি পুড়ে যাওয়াসহ অনেক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া গ্রামবাসীদের উত্তেজিত করে তুলতে নিহত হওয়ার খবরসহ নানা গুজব ছড়েয়ে পরে। 

খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে স্থানীয়রা পুলিশের উপরেও হামলা চালায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ২৫ রাউন্ড ফাঁকা গুলি ছোড়ে। 

এবিষয়ে পুলিশের পক্ষ থেকে কোন বক্তব্য পাওয়া না গেলেও ইউএনও এসএম গোলাম কিবরিয়া বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তিনি দাবী করেন,পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রনে আছে।

ব্রেকিংনিউজ/ মিলন/ পিআর/ এমজি

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2