Ads-Top-1
Ads-Top-2

মেহেরপুরে মুকুলে মুকুলে ভরছে আম গাছ

মেহেরপুর প্রতিনিধি
২১ জানুয়ারি ২০১৮, রবিবার
প্রকাশিত: 09:01:00 আপডেট: 06:02:47
মেহেরপুরে মুকুলে মুকুলে ভরছে আম গাছ

 সুস্বাদু আমের জেলা মেহেরপুর। উৎপাদনের দিক থেকে রাজশাহী প্রথম হলেও স্বাদের দিক থেকে মেহেরপুরের আম প্রথম। মাটি ও আবহাওয়ার কারণে মেহেরপুরের সুস্বাদু হিমসাগর আম দেশের বাইরে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নভুক্ত দেশগুলোতে তার মাহাত্ম্য ছড়াতে যাচ্ছে।
 
মেহেরপুরে এখন গাছে গাছে দৃশ্যমান সোনালি মুকুলে মুকুলে ছেয়ে যাচ্ছে। আম্র মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে ভরে উঠেছে জেলার আম বাগানগুলো। তাপমাত্রা বৃদ্ধির সাথে সাথে আমের মুকুলের গন্ধর তীব্রতাও বাড়ছে। শীতের তীব্রতা কমে আমের মুকুল ফোটা শুরু হবার সাথে সাথে আম বাগানগুলোতে মধু সংগ্রহে মৌ মাছিদেরও ছোটাছুটি শুরু হয়েছে। সেই সাথে মেহেরপুর জেলার ১১ হাজার আম চাষীর ব্যস্ততা বেড়েছে। বাগান মালিকরা বাগানের আমগাছে ওষুধ স্প্রেসহ বিভিন্ন ধরসের যত্ন-আত্তি শুরু করেছে। মৌসুমের শুরুতেই পর্যাপ্ত মুকুলের সমারোহে আম চাষিদের মনে সোনালি স্বপ্ন দোলা দিচ্ছে।
 
কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, ফ্রেব্রুয়ারি মাসেই প্রতিটি গাছেই পুরোপুরিভাবে মুকুল ফুটে যাবে। বড় ধরনের কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না ঘটলে এ বছর আমের বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করছেন বাগান মালিক ও বাগান ব্যবসায়ীরা।
 
কৃষিবিভাগ জানায়, আম চাষে প্রথমে আছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও রাজশাহী। কিন্তু স্বাদে মেহেরপুর। মেহেরপুর আম সুস্বাদু হওয়ায় এখানকার আমের চাহিদা দেশের সব জেলাতেই দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে। চাহিদা বৃদ্ধির সাথে সাথে আমের বাগান ও বৃদ্ধি পাচ্ছে। মেহেরপুরের মুজিবনগর বৃটিশ শাসনামলে তৈরি মুজিবনগর আম্রকাননে ১২শ’ আম গাছ আছে। এখন মেহেরপুর জেলায় বাণিজ্যিক ভিত্তিতে সব জাতের আমেরই চাষ হচ্ছে। লাভজনক হওয়ায় প্রতিবছর কৃষি জমিতে তৈরি করা হচ্ছে আমের বাগান।
 
এখন যে কেউ মেহেরপুরে পা রাখলে তার প্রথমে অনুভূত হবে বাতাসে কড়া মিষ্টি গন্ধ। পাগল করা এ সুবাস গাছে গাছে বিকশিত আমের মুকুলের। শহর ছেড়ে গ্রামের পথে পা বাড়ালেই মুকুলের হাতছানিতে বিমোহিত হবেন যে কেউ। বাগান মালিকরা বলছে গাছে গাছে মুকুলের সমারোহ দেখে মনে হচ্ছে, এবারও আমের বাম্পার ফলন হবে এ অঞ্চলে।
 
মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ভোমরদহ গ্রামের আম চাষী রায়হানুল হক জানান, শীতের তীব্রতা থাকলেও আম গাছে মুকুল আসতে শুরু করেছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে এবার গাছগুলোতে মুকুলের সমারোহ ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে।
 
মেহেরপুর জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক এস এম মোস্তাফিজুর রহমান জানান, মূলত তিনটি পর্যায়ে আমের মুকুল আসে। যার প্রথম পর্যায় শুরু হয়েছে। পুরনো জাতের গাছগুলোতে মুকুল ধরেছে।
 
আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত সব গাছে মুকুল দেখা যাবে। এখানকার মাটির গুণেই হিমসাগর, লেংড়া, বোম্বাই, তিলি বোম্বাই ইত্যাদি জাতের আম খুবই সুস্বাদু। বিশেষ করে নিয়মিত জাত ল্যাংড়া, গোপালভোগ, ক্ষীরসাপাতি, আশ্বিনা জাতের বাগান বেশি থাকলেও গবেষণাকৃত বারি-৩, বারি-৪ জাতের বাগান তৈরির ক্ষেত্রেও আগ্রহী হয়ে উঠছে অনেকে। সেই সঙ্গে নতুন নতুন বাগানগুলো তৈরী হচ্ছে বনেদি ও হাইব্রিট জাতের। নিয়মিত যতœ নিলে আমের অফ ইয়ার বলে কিছু থাকে না। প্রতি বছরই বাগানে আম আসবে বলে তিনি জানান। জেলায় ৩০ হাজার হেক্টর জমিতে আমবাগান রয়েছে। ২০০ জাতের আম উৎপন্ন হয় মেহেরপুরে।
 
ব্রেকিংনিউজ/জিসা
 

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2