Ads-Top-1
Ads-Top-2

জনগণ প্রধানমন্ত্রীর উন্নয়ন গ্রহণ করেছে


৩১ ডিসেম্বর ২০১৭, রবিবার
প্রকাশিত: 03:06:00 আপডেট: 12:00:00

ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার মো. আবদুস সবুর। বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ছাত্র থাকা অবস্থায় ছিলেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। ছাত্রজীবনে খুব দক্ষভাবে রাজনৈতিক দায়িত্ব পালন করায় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটিতে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পান। সেই সাথে দ্বিতীয় মেয়াদে সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন ইনস্টিটিউট অব ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশ (আইইবি)’র। এখন তিনি চান তাঁর নির্বাচনী এলাকা কুমিল্লা-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচিত হয়ে জনগণের সেবা করতে।
 
সম্প্রতি শেষ হওয়া রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরাজয়, আগামী দিনে আওয়ামী লীগের ভাবনা, বিএনপিকে মোকাবিলার কৌশল, তার নির্বাচনী এলাকা নিয়ে ভাবনাসহ বেশ কিছু বিষয়ে একান্ত সাক্ষাৎকার দিয়েছেন ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি’কে। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন ব্রেকিংনিউজের নিজস্ব প্রতিবেদক একেএম ইমরান হোসাইন।

ব্রেকিংনিউজ: নির্বাচনী বছরে আওয়ামী লীগের সংগঠনিক কাজকর্ম আরো গতিশীল করার লক্ষে দেশের বিভিন্ন জেলা উপজেলায় কেন্দ্রীয় নেতারা সফর করবেন বলে আমার শুনতে পাচ্ছি। এ সফর কখন থেকে শুরু হবে? কোন ক্যাটাগরির নেতারা থাকবেন এই সফরে?
আবদুস সবুর: আমাদের আগামী বছর মূল টার্গেটই হচ্ছে জাতীয় নির্বাচন। এখানে ঢাকঢোল বাজানোর কোন ব্যাপার নেই। আমাদের প্রধানমন্ত্রী যে নয় বছর দেশ পরিচালনা করার সুযোগ পেয়েছেন, এই নয় বছরে বিগত ৪৬ বছরের মধ্যে সবচেয়ে বেশি উন্নয়ন হয়েছে। এই উন্নয়নে দেশ অনেক এগিয়ে গেছে।  বাংলাদেশের মানুষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়নকে গ্রহণ করেছে। এজন্য দেশের মানুষ বিশেষ করে নতুন প্রজন্ম মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের দিকে ধাবিত হয়েছে। তাই আমাদের এই সফরের মূল লক্ষ্য হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে আরো বেশি শাণিত করা। সেই সাথে আগামী নির্বাচনে জয়ী হওয়ার লক্ষে নেতাকর্মীদের উদ্বুদ্ধ করতে হবে। দেশব্যাপী এই সফরে দলের কেন্দ্রের সব ‌ক্যাটাগরির নেতা থাকবেন। আমার আশা করি খুব তাড়াতাড়ি এই সফর শুরু করতে পারবো।
 
ব্রেকিংনিউজ: আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ডাটা করার কথা শোনা যাচ্ছিল। এই ডাটা সংগ্রহের কাজ কতটুকু হয়েছে?
আবদুস সবুর: ইতিমধ্যে এই কাজ অনেক এগিয়ে গেছে। আমরা এই ডাটা তৈরির কাজ আমাদের তৃণমূল থেকে করে আসছি। আশা করি এই ডাটা সংগ্রহের কাজ কিছু দিনের মধ্যেই শেষ হবে। এই ডাটা তৈরির কাজ শেষ হলে এর সুফল আমরা সবাই পাব। যার ফলে আমাদের দলের নাম ভাঙিয়ে আর কেউ অন্যায় করতে পারবে না। আর যদি কেউ করে তাহলে আমার সাথে সাথে তাকে শাস্তির আওতায় আনতে পারব।
 
ব্রেকিংনিউজ: আগামী নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ডিজিটাল পদ্ধতিতে প্রচার চালানো হবে বলে শুনতে পাচ্ছি। এই ডিজিটাল প্রচারে কি ধরনের চমক থাকতে পারে?
আবদুস সবুর: আমরা জনসাধারণের কাছে গিয়ে প্রচার চালানোর পাশাপাশি ডিজিটাল প্রচারও চালিয়ে যাচ্ছি। ডিজিটাল বাংলাদেশ এখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে যাচ্ছে। এখন যে যে মাধ্যমে প্রচার চালানো যায় সব মাধ্যমেই আমরা প্রচার চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের সামনে আরো অনেক চমক থাকবে। সেটা সময় হলে সবাইকে জানানো হবে।
 
ব্রেকিংনিউজ: আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক হিসেবে আপনি দায়িত্ব পালন করছেন। এই পদে থেকে আপনি কতটা সফল বলে মনে করছেন?
আবদুস সবুর: এটি একটি সমন্বিত প্রক্রিয়া। মহানগর, জেলা, থানা, ইউনিয়ন পযায়ের আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক যারা আছেস, তাদের সাথে সমন্বয় করার চেষ্টা করছি; যেন বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কার‌্যকর্ম গুলো মানুষের দ্বারে দ্বারে পৌঁছে দিতে পারি। সেই সাথে বর্তমান সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন বাস্তবায়নে সকল ধরনের কাজ করে যাচ্ছি। শুধু বিজ্ঞান প্রযুক্তি সম্পাদকরা নন, সকল সম্পাদকই কাজ করে যাচ্ছে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার জন্য।
 
ব্রেকিংনিউজ: নতুন বছরের শুরুতে যদি বিএনপি আন্দোলনমুখি হয় সে ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগ কিভাবে তাদের মোকাবিলা করবে?
আবদুস সবুর: দীর্ঘ সময় বিরোধী দলে থেকেছে আওয়ামী লীগ। সেই দিক থেকে আওয়ামী লীগ অনেক পরিপক্ক দল। আওয়ামী লীগ রাজনৈতিক ভাবেই বিএনপিকে মোকাবিলা করবে।


 
ব্রেকিংনিউজ: রংপুর সিটি করপোরেশনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এক লাখ ভোটে কম পেয়ে হেরেছে। এতো বড় ব্যবধানে হারার কি কারণ বলে আপনারা মনে করছেন? এর প্রভাব জাতীয় নির্বাচনে পড়বে বলে আপনারা মনে করছেন কিনা?
আবদুস সবুর: স্থানীয় নির্বাচন আর জাতীয় নির্বাচন সম্পূর্ণ আলাদা বিষয়। জাতীয় নির্বাচনে এই নির্বাচনের কোন প্রভাব পড়বে না। এই নির্বাচনে আমাদের যতটা গুরুত্ব দেওয়ার কথা ছিল ঠিক ততটাই গুরুত্ব দিয়েছি। আর সব নির্বাচনে আমারা জয়ী হব এমন তো কোন কথা নেই। আমাদের প্রার্থী বাছাই ছিল খুব চমৎকার। আমাদের প্রার্থীর পরাজয় হয়েছে ঠিকেই কিন্তু রাজনৈতিক জয় হয়েছে, গণতন্ত্রের জয় হয়েছে। সারা বাংলাদেশের মানুষ অনুভব করতে পারছে আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক জয়টা। 
 
ব্রেকিংনিউজ: রংপুরের নির্বাচন নিয়ে বিএনপির অভিযোগ সম্পর্কে আপনাদের মতামত?
আবদুস সবুর: বিএনপি সব নির্বাচনেই অভিযোগ করে। তারা নির্বাচনে জয়লাভ করতে না পারলে বলে কারচুপি, জালিয়াতি। আমরা যদি রংপুরে কারচুপি করতাম তাহলে আমারই জয় লাভ করতাম। আর বিএনপির দুই জন দুই ধরনের কথা বলছে। তাদের কথার তো কোন ঠিক নেই।
 
ব্রেকিংনিউজ: আমরা যতটুকু শুনেছি আগামী জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার হচ্ছে না। ইভিএম ব্যবহার না করাটা কি ডিজিটাল বাংলাদেশের সাথে সংঘর্ষিক বলে মনে করছেন?
আবদুস সবুর: জাতীয় নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হলে খুবই ভাল হতো। কারণ এই পদ্ধতিতে খুবই তাড়াতাড়ি ভোট দিতে যেমন সুবিধা হয় তেমনি গণনার ক্ষেত্রেও সুবিধা হয়। এই নির্বাচনে যদি ইভিএম ব্যবহার না করা হয় তাহলে আমার আশা করি পরের নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হবে।
 
ব্রেকিংনিউজ: রংপুর সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের পরাজয়ের প্রভাব ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচনে পড়বে বলে মনে করছেন?
আবদুস সবুর: রংপরের নির্বাচনের কোন প্রভাব ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচনে পড়বে না। ঢাকা উত্তর সিটির উপ-নির্বাচনে জনগণের কাছে গ্রহণ যোগ্য হবে এমন প্রার্থী দিবে আওয়ামী লীগ।
 
ব্রেকিংনিউজ: রংপুর সিটি করপোরেশনের যেমন সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে আগামী একাদশ জাতীয় নির্বাচনে এ ধারা অব্যহত থাকবে কিনা?
আবদুস সবুর: জাতীয় নির্বাচনও সুষ্ঠু ও আবাদ হবে। নির্বাচন পরিচালনা করবে নির্বাচন কমিশন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে সরকার সহায়ক ভূমিকা পালন করবে। কোনো দল নির্বাচনে না আসলে এটা তাদের বিষয়। নির্বাচন কারো জন্য থেমে থাকবে না। এটা একটা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া।
 
ব্রেকিংনিউজ: আমরা যতটুকু জানি আপনি আগামী নির্বাচনে কুমিল্লা-১ আসন থেকে আওয়ামী লীগের হয়ে নির্বাচন করতে চান। আপনাকে যদি মনোনয়ন দেওয়া হয় আর বিজয়ী হন তাহলে আপনি এলাকার কোন কোন দিকগুলোর বেশি উন্নয়ন করতে চান?  
আবদুস সবুর: আওয়ামী লীগ থেকে যাকেই মনোনয়ন দেওয়া হউক নৌকার পক্ষে কাজ করে যাবো। মনোনয়ন বোর্ড যে সিদ্ধান্ত দিবে তা মেনে নিব। আর যদি আমাকে মনোনয়ন দেওয়া হয় আর আমি বিজয়ী হই, তাহলে প্রধানমন্ত্রীর শেখ হাসিনার সহায়তায় প্রথম পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাধ্যমে পোল্ডার বানিয়ে আশপাশের নদীগুলোতে বাঁধ দেয়ার ব্যবস্থা করা করব। কারণ আমাদের এলাকার ভূমি নিচু। বর্ষার সময়ে চার থেকে ছয় মাস পানিতে ডুবে থাকে। তারপর  প্রযুক্তি ব্যবহার করে ইরিগেশন পদ্ধতিতে একই জমিতে তিনটা ফসল ফলানোর ব্যবস্থা করব। আমাদের এলাকার মানুষ যেন এক ঘণ্টার মধ্যে ঢাকার আসতে পারে সেই ব্যবস্থা করব।

ব্রেকিংনিউজ: আপনার মূলবান সময় দেয়ার জন্য কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ।
আবদুস সবুর: আপানকে ও ব্রেকিংনিউজ পরিবারকে ধন্যবাদ।
 
ব্রেকিংনিউজ/আইএইচ/জিয়া
 

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
সর্বশেষ খবর
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2