Ads-Top-1
Ads-Top-2

প্রাকৃতিক বনায়নের কোন বিকল্প নেই

জবি করেসপন্ডেন্ট
১৭ ডিসেম্বর ২০১৭, রবিবার
প্রকাশিত: 05:23:00 আপডেট: 12:00:00

দেশের প্রাকৃতিক বনভূমি ও পরিবেশ নিয়ে ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি এর সাথে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় উদ্ভিদ বিজ্ঞান বিভাগের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মনিরুজ্জামান খন্দকার একান্ত সাক্ষাৎকার  দিয়েছেন। তাতে আমাদের দেশের পরিবেশের সাথে দেশী ও বিদেশী বৃক্ষরোপণের ভালমন্দ দিকগুলো আলোচনা করা হয়েছে। সাক্ষাৎকারটি নিয়েছেন জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় করেসপন্ডেন্ট পরিতোষ আচার্য
 
ব্রেকিংনিউজ : কেমন আছেন স্যার।
ড.মনিরুজ্জামান : জ্বী, ভাল।  আপনি?
 
ব্রেকিংনিউজ : ভাল স্যার। আপনার সাথে আজ আমাদের দেশের প্রাকৃতিক বনভূমি ও বৃক্ষরোপণ নিয়ে আলোচনা করতে চাই।
ড.মনিরুজ্জামান : হ্যাঁ, অবশ্যই।
 
ব্রেকিংনিউজ : সকল বিদেশী গাছ কি আমাদের দেশের পরিবেশের উপযোগী? 
ড. মনিরুজ্জামান: আসলে ব্যাপারটি এরকম নয়। আমাদের দেশে কিছু বিদেশী গাছ আনা হয় বিভিন্ন সময় রাস্তার পাশে কিংবা বোটানিক্যাল গার্ডেনে রোপন করতে। কিন্তু সবগুলো যে অনুপযোগী তাও নয়। বাহির থেকে যখন কোন বৃক্ষ আমাদের দেশে ইনপুট করা হয় দেশের বন বিভাগ ও বিমানবন্দর এলাকায় তার রোগ নির্ণয়ে করেকটি পরীক্ষা নিরাক্ষা করা হয়। যদি রোগ না থাকে ও দেশের ভৌগোলিক পরিবেশের সাথে ভারসাম্য রক্ষা করতে পারে সেই শর্তেই বৃক্ষগুলো দেশে আনা হয়।
 


ব্রেকিংনিউজ: আক্ষরিক অর্থে একটি স্লোগান বলা হয়ে থাকে ‘বেশি করে গাছ লাগান, পরিবেশ বাঁচান’ এই স্লোগানটি আদৌ সঠিক?  নাকি ‘বেশি করে দেশী গাছ লাগান, পরিবেশ বাঁচান'’ স্লোগানটিকে বেশি উপযোগী বলে আপনি মনে করেন? 
 ড. মনিরুজ্জামান: স্লোগানটি আসলে মোটা অর্থে সঠিক। কারণ আমাদের দেশের ঘরবাড়ি, শিল্প কারখানা ও রাস্তাঘাট নির্মাণ করতে গিয়ে ব্যাপকভাবে বৃক্ষ নিধন করা হচ্ছে। তাই এই স্লোগানটি বলা হয়ে থাকে। এদিক বিবেচনা করে এই স্লোগানটি মোটামুটিভাবে ঠিক বলে ধরা যায়। তবে যেকোন দেশের  ইকোলজিক্যাল ব্যালেন্সের সাথে সে দেশের দেশীয় গাছগুলোই বেশী উপযোগী।
 
ব্রেকিংনিউজ: পরিবেশের সাথে দেশী গাছগুলোর সম্পর্ক কি রকম ও বিদেশী গাছ গুলোর সাথে তার পার্থক্য কেমন? 
ড. মনিরুজ্জামান: পরিবেশের সাথে দেশী গাছগুলোর সম্পর্ক সবচেয়ে বেশি নিবিড়। কারণ দীর্ঘদিন ধরে তা পরিবেশের সাথে অভিযোজন করে আসছে এবং তার একটি বৃদ্ধিচক্র তৈরি করেছে। এদিক দিয়ে বিদেশী গাছগুলোর অবস্থান পরিবেশের সাথে সেই পর্যায়ের নিবিড় সম্পর্কে নেই।  যেমন, ইউক্যালিপটাস গাছটি ক্ষতিকর বলে অনেকরই ধারণা। তবে বিষয়টি পুরোপুরি সঠিক নয়। তার কিছু ক্ষতিকর দিক আছে তবে সেটা মারাত্মক পর্যায়ের নয়। তবে দেশী গাছ বেশী উপযোগী নিঃসন্দেহ।
 
ব্রেকিংনিউজ: আমাদের দেশের অনেকগুলো গাছ বিলুপ্ত হয়ে যাচ্ছে পরিবেশের ভারসাম্যহীনতার কারণে। সেই বিলুপ্ত প্রায় গাছগুলোকে টিকিয়ে রাখতে হলে আমাদের কি কি পন্থা অবলম্বন করা উচিত বলে আপনি মনে করেন? 
ড.মনিরুজ্জামান: বিলুপ্ত প্রায় সকল গাছগুলোকে আমরা হয়তো পুনরুদ্ধার করতে পারব না। তবে অধিক প্রয়োজনীয় গাছগুলোকে বেশী করে কালটিভেশন করে আমরা সেই গাছগুলোকে ধরে রাখতে পারি। তার জন্য ‘বাংলাদেশ বন বিভাগ’ ও ‘ন্যাশনাল হার্বে’ কিছুটা কাজ করে যাচ্ছে।
 
ব্রেকিংনিউজ: স্যার, শেষ প্রশ্ন। আমাদের দেশের সামাজিক বনায়ন কি প্রাকৃতিক বনায়নের বিকল্প হতে পারে? 
ড. মনিরুজ্জামান: না। কখনওই না। প্রাকৃতিক বনায়নের কোন বিকল্প রাস্তা নেই। একটি দেশের পরিবেশগত ভারসাম্য রক্ষার্থে তার ২৫ ভাগ প্রাকৃতিক বনভূমি থাকা প্রয়োজন। এর পরিমাণ যত কমবে সেই দেশ তত বেশি প্রাকৃতিক বিপর্যের দিকে এগোবে।
 
ব্রেকিংনিউজ: ধন্যবাদ আপনাকে ব্রেকিংনিউজের সাথে আপনার মূল্যবান বক্তব্য গুলো শেয়ার করার জন্য।
 ড.মনিরুজ্জামান: ব্রেকিংনিউজকেও ধন্যবাদ।
 
ব্রেকিংনিউজ/পিএ/জিয়া
 

Ads-Sidebar-3
Ads-Sidebar-3
সর্বাধিক পঠিত
Ads-Sidebar-3
সর্বশেষ খবর
Ads-Sidebar-3
Ads-Top-1
Ads-Top-2