শিরোনাম:

কয়েক মাসের মধ্যে ইন্টারনেটের প্রকৃত মূল্য নির্ধারণ

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
প্রকাশিত : শনিবার, ১৭ জুন ২০১৭, ১১:২৮
অ-অ+
কয়েক মাসের মধ্যে ইন্টারনেটের প্রকৃত মূল্য নির্ধারণ

ঢাকা: কয়েক মাসের মধ্যেই নির্ধারিত হতে যাচ্ছে ইন্টারনেটের প্রকৃত দাম। এই দাম নির্ধারিত হওয়ার পর সীমার মধ্যে থেকেই ডাটা প্ল্যান তৈরি করতে হবে অপারেটরদের। ব্যবহারকারী পর্যায়ে মোবাইল ইন্টারনেটের সর্বোচ্চ ও সর্বনিম্ন দাম নির্ধারণে ইতোমধ্যেই কাজ শুরু করেছেন আন্তর্জাতিকে টেলিযোগাযোগ ইউনিয়নের (আইটিইউ) দু’জন বিশেষজ্ঞ।

নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসি'র সংশ্লিষ্ট বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, দুই সদস্যের এই দলটি ধারাবাহিকভাবে বিটিআরসি ও অপারেটরগুলোর কর্মকর্তাদের সঙ্গে কর্মশালা করছেন। অপরদিকে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত তিন দিনের বৈঠকে বিশেষজ্ঞরা অপারেটরগুলোর কাছে তাদের সংশ্লিষ্ট সকল ব্যয় ও আয়ের তথ্য চেয়েছেন। এই তথ্য পর্যালোচনা করে ডেটার সর্বোচ্চ ও সর্বনিন্ম সীমা বেঁধে দেওয়া হবে বলে জানিয়েছে বৈঠক সূত্র। 

এ বিষয়ে বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, ডেটার কস্ট মডেলিং হলে গ্রাহকরা প্রকৃত দামে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন।

এর আগে গ্রাহকদের একাধিক আবেদনের প্রেক্ষিতে মোবাইল ডেটার মূল্য বেঁধে দেওয়ার উদ্যোগ নেয় বিটিআরসি। তবে শেষ পর্যন্ত তা বাস্তবায়ন না হওয়ায় বিটিআরসিকে এক মাসের সময় বেঁধে দেয় ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্সের নির্বাহী কমিটি।

বিটিআরসি সূত্র জানায়, গত ২৭ মার্চ প্রধানমন্ত্রীর সভাপতিত্বে এক বৈঠকে কস্ট মডেলিংয়ের জন্য পরামর্শক নিয়োগে বিটিআরসিকে নির্দেশ দেয়া হয়। 

এ ব্যাপারে বিটিআরসির চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বলেন, ‘কস্ট মডেলিংয়ের মাধ্যমে ইন্টারনেটের দাম কত হওয়া উচিত, সে বিষয়ে একটি ধারণা পাওয়া যাবে। এরপর সে অনুযায়ী বিটিআরসি ব্যবস্থা নেবে।’

এর আগে ২০১৬ সালেও একবার কস্ট মডেলিং করার উদ্যোগ নিয়েছিল বিটিআরসি। ২০০৮ সালে ভয়েস কলের ক্ষেত্রে কস্ট মডেলিং বিনামূল্যে করে দিয়েছিল আইটিইউ। কারণ, তখন বাংলাদেশ নিম্নআয়ের দেশ ছিল। কিন্তু মধ্যম আয়ের দেশে উন্নিত হওয়ায় আইটিইউয়ের নিয়ম অনুযায়ী, বাংলাদেশকে এখন কস্ট মডেলিংয়ের জন্য অর্থ খরচ করতে হবে। পরামর্শক দিয়ে কাজটি করাতে ২৫ থেকে ৩০ লাখ টাকা খরচ হতে পারে।

বিটিআরসির সর্বশেষ পরিসংখ্যান অনুযায়ী, বাংলাদেশে প্রকৃত ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যা ২ কোটির কিছু বেশি। বাংলাদেশে মুঠোফোন ইন্টারনেট গ্রাহকদের সবচেয়ে বড় অভিযোগ মূল্য নিয়ে। তবে মুঠোফোন অপারেটরদের দাবি, বাংলাদেশে এই ইন্টারনেটের মূল্য সারাবিশ্বের মধ্যে এখন দ্বিতীয় সর্বনিম্ন। বর্তমানে বিভিন্ন মুঠোফোন অপারেটরের ৩০ দিন মেয়াদের এক গিগাবাইট ইন্টারনেট প্যাকেজের গড় দাম ১৮০ থেকে ২২০ টাকা। আর ৭ দিন মেয়াদের এক গিগাবাইট প্যাকেজের দাম ৮৯ থেকে ৯৪ টাকা। এই দামের সঙ্গে ১৫ শতাংশ মূল্য সংযোজন কর, ৫ শতাংশ সম্পূরক শুল্ক ও ১ শতাংশ সারচার্জ গ্রাহককে দিতে হয়। এ হিসেবে প্রতি ১০০ টাকার ইন্টারনেট সেবা কিনতে গ্রাহককে প্রায় ২২ টাকা কর দিতে হয়।

ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি/ ইহক/ এআর