শিরোনাম:

প্রত্যাখ্যান হতে পারে বাড়তি আবগারি শুল্ক

নিউজ ডেস্ক, ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডি
প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ১৩ জুন ২০১৭, ০৩:৪২
অ-অ+
প্রত্যাখ্যান হতে পারে বাড়তি আবগারি শুল্ক
ফাইল ফটো

ঢাকা: ব্যাংক হিসাবে বাড়তি আবগারি শুল্ক তুলে নেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান। এ নিয়ে সরকারের উচ্চ পর্যায়ে আলোচনা চলছে বলেও জানিয়েছেন তিনি। বিষয়টির একটি গ্রহণযোগ্য সমাধান আসবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন প্রতিমন্ত্রী। 

বাজেটে প্রস্তাবিত বাড়তি আবগারি শুল্ক কমানোর কোনও পরিকল্পনা সরকারের নেই- অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের এমন বক্তব্যের কয়েক দিনের মাথায় মঙ্গলবার (১৩ জুন) জাতীয় সংসদে বাজেট নিয়ে সাধারণ আলোচনায় এমন আশ্বাস দেন এম এ মান্নান। 

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আবগারি শুল্ক কমাতে উচ্চমহলে চিন্তাভাবনা চলছে।' 

বাজেটে বাড়তি আবগারি শুল্ক প্রত্যাহারে সরকারি ও বিরোধী দলের বেশ কয়েকজন সাংসদ দাবি জানালে এরই প্রেক্ষিতে আজ সংসদে বাজেট আলোচনায় এম এ মান্নান বলেন, ‘আমাদের নেতৃত্ব, যিনি সরকার পরিচালনা করেন, আমাদের অর্থমন্ত্রী বোবা কালা নন। এরা জনগণের ম​ধ্যে বসবাস করেন। জনসমাজে বসবাস করেন, এরা সংসদের নেতা।’

১৯৪৭ সাল থেকে আবগারি শুল্ক সিস্টেম চলছে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘আগে আবগারি শুল্ক কম ছিল। এখন তা বেড়ে ৫০০ টাকায় পৌঁছেছে। এটা সব অ্যাকাউন্টে ছিল। এক হাজার টাকার একাউন্টেও ছিল। এক কোটি টাকার অ্যাকাউন্টেও ছিল। সবাই এটা দিয়ে আসছি। বরং এখন বড় অ্যাকাউন্টে ৫০০ থেকে ৮০০ টাকা করা হয়েছে। এখানেও ন্যায্যতা মূলনীতি কল্যাণ সেটা ঠিকই আছে।’

বাড়তি আবগারি শুল্ক প্রত্যাহারে সাংসদদের দেয়া প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয় গুরুত্বের সঙ্গে দেখবে বলেও জানান তিনি। 

গত ১ জুন অর্থমন্ত্রী ঘোষিত বাজেটে ব্যাংক গ্রাহকদের ওপর বাড়তি হারে আবগারি শুল্ক আরোপের প্রস্তাব করার পর থেকেই এ নিয়ে আলোচনা চলছে। প্রস্তাবে বলা হয়েছে, বছরের যে কোনো সময় ব্যাংক হিসাবে এক লাখ টাকার বেশি স্থিতি থাকলে আবগারি শুল্ক বিদ্যমান ৫০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৮০০ টাকা করা হবে।

পাশাপাশি ১০ লাখ থেকে ১ কোটি টাকা পর্যন্ত ১ হাজার ৫০০ টাকার বদলে ২ হাজার ৫০০ টাকা, ১ কোটি থেকে ৫ কোটি টাকা পর্যন্ত ৭ হাজার ৫০০ টাকার বদলে ১২ হাজার টাকা এবং ৫ কোটি টাকার বেশি লেনদেনে ১৫ হাজার টাকার বদলে ২৫ হাজার টাকা আবগারি শুল্ক আরোপের প্রস্তাব করেছেন মুহিত।

এদিকে বিশ্বের ১৬৯টি দেশে ভ্যাট ব্যবস্থা চালু আছে জানিয়ে অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান আরও বলেন, ‘ভ্যাটের বিষয়টি সারা বিশ্বে স্বীকৃত, বৈজ্ঞানিক। বর্তমান বিশ্বে ভ্যাটের গড় ১৪ দশমিক শূণ্য ৮। সেখানে আমরা ১৫–তে আছি।’ 

ভ্যাট নিয়ে নানা আলোচনা থাকলেও ভ্যাটের ন্যায্যতা সাম্যতা নিয়ে কোনও প্রশ্ন নেই বলে মন্তব্য করে প্রতিমন্ত্রী। 

রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর প্রশংসা করে এম এ মান্নান আরও বলেন, ‘রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংকগুলোর মালিক দেশের জনগণ। ব্যাংকের সব টাকা জনগণের। জনগণের সুবিধার্থে আমরা ব্যাংকগুলোর আইন পরিবর্তন করে করপোরেট আইন করেছি। বোর্ড পুনর্গঠন করেছি। বোর্ডে রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গের পরিবর্তে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও অভিজ্ঞ আমলাদের নিয়ে এসেছি।’

বাংলাদেশের ব্যাংকিং ব্যবস্থা আগামী দিনে আরও পাকাপোক্তভাবে ঘুরে দাঁড়াবে- বাজেট আলোচনায় এমন আশাবাদও প্রকাশ করেন প্রতিমন্ত্রী। 

ব্রেকিংনিউজ/ এমআর