দুইটি বাঘশাবক জন্ম দিয়েই পালিয়ে গেছে মা বাঘ। তাই বলে কি তাদের দেখভালের কেউ নেই? আছে, তাদেরেএ দায়িত্ব নিয়েছে একটি কুকুর। মানবিকতা যখন উহ্যের পথে তখন ‘জীবন জীবনের জন্যে’ কথাটা আরও একবার সামনে এনে দিল এই পশুটি। জার্মানির একটি চিড়িয়াখানায় কুকুরের কোলে বড় হচ্ছে দুই বাঘশাবক। সেখানকার স্টাকেনব্রোক সাফারি পার্কে ছানা দু’টিকে ফেলে মা বাঘ পালিয়েছে। জমজ ছানা দু’টির বয়স এখন এক মাস। নাম পিচ ও পার্ল। সেখানকার রক্ষক জিনেট উরমস বলছিলেন, প্রসবের সময় বাঘিনীর কষ্ট হচ্ছিলো। ঘণ্টাখানেকের চেষ্টায় বাচ্চা দু’টিকে জন্ম দিয়েই ভেগেছে, আর আসেনি।

প্রকাশিত : রবিবার ৪ঠা ডিসেম্বর ২০১৬ সন্ধ্যা ০৭:৫৭:২৬

জীবনটা একটা রঙের বাক্সের মতোই। আবেগগুলো সেখানে যেন এক একটা রং। যেমন যেমন রং জুড়তে জুড়তে যাবেন জীবনের রংটাও ঠিক তেমনভাবেই বদলাবে। হাসিকে যদি উজ্জ্বল কোনো রং ধরে নিতে পারি তাহলে ওই বাক্সে খানিক হাসি যুক্ত করতে পারলেই জীবনটাও উজ্জ্বল হয়ে যায়। আবার কান্নার মতো ফ্যাকাশে রং জীবনটাকে ম্লান করে তোলে। অনেকটা সে রকম ভাবেই আমাদের চারপাশের রং দেখেও পড়ে ফেলা যায় মনকে। বোঝা যায় আপনি চূড়ান্ত অবসাদগ্রস্ত, নাকি ফুরফুরে মেজাজে আছেন না কি কোনো বিষয় নিয়ে দুশ্চিন্তায় বুঁদ হয়ে আছেন! এখনই একবার রঙের খেলায় পরীক্ষা করে নিন কী চলছে আপনার অবচেতন মনে? প্রতিটা ছবি থেকে কোন রং সবথেকে বেশি আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করছে নোট করুন, উত্তরটা শেষে পাবেন

প্রকাশিত : রবিবার ৪ঠা ডিসেম্বর ২০১৬ সন্ধ্যা ০৬:০৬:২৫

ট্যাটু করতে ইচ্ছে করে! ভালবাসেন ট্যাটু দিয়ে শরীর সাজাতে! বলিউড থেকে টলিউড বা একেবারে আম বাঙালির ঘরেও ঢুকে পড়েছে ‘ট্যাটু ফ্যাশন’। তবে এটা মোটেই হালফিলের ফ্যাশন নয়! ট্যাটুর ইতিহাস কিন্তু বেশ প্রাচীন। বহু উপজাতি ধর্ম বিশ্বাসে বা সমাজ ব্যবস্থার সঙ্গে জড়িয়ে ট্যাটুর ইতিহাস। কিন্তু এই ট্যাটুর টানেই শ-দেড়েক বছর আগের উচ্চপদস্থ এক ব্রিটিশ সেনা কর্তা যে অদ্ভুত (কেউ কেউ বলেন কিম্ভুত) সংগ্রহে নেমেছিলেন তা শুনলে চমকে তো যাবেনই, আঁতকেও উঠতে পারেন। এই অদ্ভুত সংগ্রহ ‘মোকোমোকাই’ নামে পরিচিত। এই সংগ্রহে কী আছে জানেন! উল্কি করা, মৃত মানুষের, মাথা। চমকে উঠলেন তো! আসুন জেনে নেওয়া যাক প্রায় ১৫০ বছরের প্রাচীন এই সংগ্রহের সম্পর্কে কিছু তথ্য।

প্রকাশিত : শনিবার ৩রা ডিসেম্বর ২০১৬ সন্ধ্যা ০৭:৪৮:১৮