শক্তি সঞ্চয় করে আরও গাতি বাড়িয়ে ভারত হয়ে বাংলাদেশের দিকে ধেয়ে আসছে নিম্নচাপ ‘নাডা’। শনিবারের মধ্যে বাংলাদেশের মধ্য উপকূলবর্তী এলাকায় প্রায় ৬০ কিলোমিটার গতিবেগে এ ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়তে পারে। বাংলাদেশে আসার পথে অন্ধ্রপ্রদেশ, ওড়িষ্যা উপকূল ঘেঁষে আসতে হবে ‘নাডা’কে। ফলে ওই উপকূলবর্তী এলাকাতেও তার অনেকটাই প্রভাব পড়বে। এতে প্রবল ক্ষতির আশঙ্কা কমবে। এরই মধ্যে নাড়া’র প্রভাবে বৃহস্পতিবার থেকেই বৃষ্টি শুরু হয়েছে। নিম্নচাপ ঘনীভূত হওয়ায় শীতও কিছুটা থমকে গেছে। এর প্রভাবে আর্দ্রতা বেড়ে আবহাওয়া উষ্ণ হতে শুরু করেছে। শুক্রবারের মধ্যে ঘূর্ণিঝড়ের রূপ নিয়ে নিম্নচাপটি অন্ধ্র উপকূল হয়ে পরবর্তী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে তার মুখ ঘুরে যাবে বাংলাদেশ উপকূলের দিকে। যার জেরে ভারত মহাসাগর ও বঙ্গোপসাগরের মধ্যবর্তী এলাকায় সমুদ্রে তীব্র জলোচ্ছ্বাস দেখা দেবে।

প্রকাশিত : শুক্রবার ৪ঠা নভেম্বর ২০১৬ বিকাল ০৪:০৬:৪৫

রাজশাহী পানি উন্নয়ন বোর্ড বাঁধের নিচে ‘প্রোটেকশন ওয়ার্ক’ শুরু করে। এ কাজেই করা হয় চরম অনিয়ম। সে সময়ে প্রবল স্রোতে তোরে রাতারাতি কোটি টাকার প্রকল্প তৈরি করে কাচা ব্লক ফেলে আপদকালীণ বাধ রক্ষা করা হয়। ব্লক ও জিও ব্যাগ ফেলে বাধ রক্ষা করা হলেও তিন মাসের ব্যবধানে সেসব ব্লকের এখন আর কোনো অস্তিত্ব নেই। শুষ্ক মৌসুম শুরুর সঙ্গে সঙ্গে নদীতে পানির টান পড়ায় এলোমেলো হয়ে গেছে সব ব্লক। স্থানীয়রা জানান, হঠাৎ করেই বুলনপুরের এ এলাকার বিশাল অংশ ধসে পড়েছে। পানি আরো কমে গেলে পুরো বাধ ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে। এর প্রভাব পড়তে পারে বাধের অন্যান্য এলাকাতেও। বাধের ওপরের স্থানীয় বাসিন্দা ও দোকানদারদের অভিযোগ বর্ষার সময় পানি উন্নয়ন বোর্ড তড়িঘড়ি করে পানির মধেই অপরিকল্পিতবাবে ব্লক তেরি করে তা দায়সারাভাবে কাজ করে। এখন আড়াই তিনমাসের মধ্যেই সেসব ব্লকের আর কোনো অস্তিত্ব নেই। অনেক বড় এলাকা এরই মধ্যে ধসে পড়েছে। ক্রমেই ব্লক সরে বিভিন্ন স্থান দেবে যেতে শুরু করেছে। তাদের ভাষ্য, পদ্মার পানি আরো কমে গেলে পুরো বাধই ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। তবে এ বিষয়ে এখন কোনো মাথা ব্যাথা নেই পাউবো কর্তৃপক্ষের।

প্রকাশিত : বৃহঃস্পতিবার ৩রা নভেম্বর ২০১৬ বিকাল ০৩:১৬:৩৪

অপরিকল্পিতভাবে পুকুর খনন করার কারণে প্রায় ৩শ’ একর জমির ফসল নষ্ট হয়ে গেছে। এখনো বিল থেকে পানি সরে যায়নি। ফলে এ মৌসুমে ওই জমিতে আলু, বোরোধানসহ অন্যান্য আবাদ অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। এ নিয়ে চাষিরা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কাছে তিন দফা অভিযোগ করেও কোনো সুফল পাননি। এখন প্রান্তিক কৃষকরা মাঠে গিয়ে শুধুই আহাজারি করছেন। এই উপজেলার নওপাড়া ইউনিয়নের অনুলিয়ারবিল ও পোড়াবিলে ধান, পান, মরিচ, আলু, লাউসহ সব ধরণের সবজি চাষ হয়। এতদিন বর্ষায় বিলের পানি একটি সরকারি খাল দিয়ে বারনই নদীতে নেমে যায়। এ জন্য তাদের ফসলের কোনো ক্ষতি হয়নি। চাষিরা জানান, গত পাঁচ-ছয় বছর ধরে এই বিলে পুকুর খননের হিড়িক পড়ে গেছে। পুকুর মালিকেরা সাধারণ চাষিদের বাধ্য করছেন জমি বিক্রি করতে। এমনকি জোর করেও জমি দখলে নেয়ারও অভিযোগ পাওয়া গেছে।

প্রকাশিত : শুক্রবার ২৮শে অক্টোবর ২০১৬ সন্ধ্যা ০৭:৩১:৩৩

মুনাফার আশায় দুর্বৃত্তরা মুনাফার আশায় প্রায় ৭/৮ বছর ধরে কার্তিক মাসের শেষ অথবা অগ্রহায়ণ মাসের প্রথম দিকে এ ঘটনা ঘটাচ্ছে। এ বছর কচুয়াকাঠী, জোলাগাতী, নিলতী,গারতা, সোনাকুর খাল, চিরাপাড়া নদীতে বিষ ঢেলে মাছ শিকার করে। প্রশাসন ব্যবস্থা না নেওয়ায় দুর্বৃত্তরা প্রতিবছর বিষ প্রয়োগের ঘটনা ঘটিয়ে চলেছে। এভাবে মাছ শিকার করায় প্রকৃত জেলেরা ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। এতে পরিবেশ দূষিত হচ্ছে। স্থানীয় চুন্নু মিয়া বলেন, নদীতে বিষ দিয়ে এভাবে মাছ চুরি করায় স্থানীয় জেলেরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছেন। পাশাপাশি পরিবেশের ব্যাপক ক্ষতি হচ্ছে। কাউখালী ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য হাফিজুর রহমান শাহীন জানান, দুর্বৃত্তরা এ কাজটি প্রতিবছর করে। এভাবে মাছ নিধনের কারণে মাছ শূন্য হবে চিরাপাড়া নদী। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিতে প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

প্রকাশিত : শুক্রবার ২৮শে অক্টোবর ২০১৬ বিকাল ০৫:২১:১৯

এটি আরও ঘনীভূত হয়ে পশ্চিম দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে। তবে এর প্রভাবে সারাদেশে হালকা থেকে মাঝারি এবং মাঝারি থেকে ভাড়ি মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে বলে আবহাওয়া বিভাগ জানায়। এদিকে ঘূর্ণিঝড় কেন্দ্রের ৪৮ কিলোমিটারের মধ্যে বাতাসের একটানা সর্বোচ্চ গতিবেগ ঘণ্টায় ৫০ কিলোমিটার, যা দমকা অথবা ঝড়ো হাওয়ার আকারে ৬০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে। গভীর নিম্নচাপে এর কেন্দ্রের নিকটবর্তী এলাকায় সাগর উত্তাল রয়েছে। চট্টগ্রাম, কক্সবাজার, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরসমূহকে দুই নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে নামিয়ে এক নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি সংকেত দেখিয়ে যেতে বলা হয়েছে।

প্রকাশিত : শুক্রবার ২৮শে অক্টোবর ২০১৬ ভোর ০৫:১৪:২১

পশ্চিম-মধ্য বঙ্গোপসাগর ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থানরত ঘূর্ণিঝড় ‘কায়ান্ট’ দুর্বল হয়ে পড়েছে। এটি এখন গভীর নিম্নচাপে পরিণত হয়ে পশ্চিম দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হয়ে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের উপকূলীয় এলাকায় ধাবিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) আবহাওয়া অধিদপ্তর বলছে, বৃষ্টি ঝরিয়ে দুর্বল হয়ে পড়লেও নিম্নচাপের প্রভাব শুক্রবারও থাকবে এবং বর্ষণও অব্যাহত থাকতে পারে। আবহাওয়া বিভাগ জানিয়েছে, ঘূর্ণিঝড় ‘কায়ান্ট’ আজ ভোর ৯টায় চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দর থেকে ৯৭৫ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে, কক্সবাজার সমুদ্র বন্দর থেকে ৯৩০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ পশ্চিমে, মংলা সমুদ্র বন্দর থেকে ৮৫৫ কিলোমিটার দক্ষিণ পশ্চিমে এবং পায়রা সমুদ্র বন্দর থেকে ৮৫০ কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থান করছিল।

প্রকাশিত : বৃহঃস্পতিবার ২৭শে অক্টোবর ২০১৬ রাত ০৮:৫৯:৫৪

শুধুই নড়াইল শহর নয়, সারা দেশেই কমে যাচ্ছে পাখি। পাখি কমে যাওয়ায় শুধুই যে প্রাকৃতিক সৌন্দর্য হারাচ্ছে তা নয়, এর ফলে সমস্যায় পড়বে মানুষও। এখন যে সমস্যাগুলোর জন্য পাখিদের অস্তিত্ব সমস্যায় পড়েছে, সেগুলো ভবিষ্যতে মানুষের অস্তিত্ব সঙ্কটেরও কারণ হবে। তারা বলেন, জীববৈচিত্র্য হল একটা চেইন। সবুজের অভাবে যেমন বাসস্থানের পাশাপাশি অক্সিজেনের উৎসও হারাচ্ছে মানুষ। জলাশয় কমে যাওয়ায় যেমন অসুবিধায় পড়ছে পাখিরা, তেমনই জলেরও সঙ্কট হচ্ছে মানুষের। তাছাড়া শহরে যে ধরনের আলো দেয়া হচ্ছে, সেগুলো মানুষ ও পাখি, উভয়ের শরীরের পক্ষেই ক্ষতিকর।

প্রকাশিত : বৃহঃস্পতিবার ২৭শে অক্টোবর ২০১৬ বিকাল ০৫:০৪:৩৩

বাংলাদেশে জলবায়ু পরিবর্তনজনিত ঝুঁকি মোকাবিলায় বাংলাদেশ বিশ্বব্যাংকের কাছ থেকে ঋণ নয় বরং অনুদান চায় বলে জানিয়েছেন পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত স্থানীয় কমিটির সদস্য ড. হাছান মাহমুদ। বৃহস্পতিবার (২৭ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে "বিপদাপন্ন জনগোষ্ঠির পক্ষে নাগরিক সমাজের প্রস্তাবনা" শীর্ষক এক সেমিনারে সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। উল্লেখ্য, ইতোমধ্যে বাংলাদেশ গ্রিন হাউজ গ্যাসের উদ্গিরন নিয়ন্ত্রণে 'প্যারিস চুক্তি' নামে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। আগামী ৭-১৮ নভেম্বর মরক্কোর মারাকাশে ২২তম কনফারেন্স অফ পার্টিজ (কপ ২২) সম্মেলনে বাংলাদেশের প্রতিনিধিরা অংশ নিতে যাচ্ছেন। কনফারেন্স অফ পার্টিজ (কপ ২২) সম্মেলনে যোগদানের আগে পূর্বপ্রস্তুতিমূলক এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হলো।

প্রকাশিত : বৃহঃস্পতিবার ২৭শে অক্টোবর ২০১৬ বিকাল ০৪:৩২:৫০

গ্রামের মানুষ যেন এই পাখিগুলোকে পরম আত্মীয়ের মত আগলে রেখেছে। কোন শিকারি ভুলক্রমে এ গ্রামে প্রবেশ করলে গ্রামবাসীর প্রতিরোধের মুখে শিকারিরা ফিরে যেত বাধ্য হন। এই গ্রামের স্থানীয় বাসিন্দা ইউনুসার রহমান হেবজুল জানান, পুরো গ্রামবাসী বিশেষ করে যুবকরা পাখিদের প্রতি ভালবাসা দেখিয়ে এক বিরল নজির স্থাপন করেছে। কোন পাখির ছানা ঝড় ঝাপটায় বাসা থেকে পড়ে অসুস্থ হলে গ্রামের যুবকরাই ওই পাখির ছানাকে তুলে সেবা যত্নের মাধ্যমে সুস্থ করে বাসায় তুলে দেয়। উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার নান্নু জানান, এ অভয়ারণ্য রক্ষায় ব্যক্তিগত তত্ত্বাবধানে ইতোমধ্যেই সহযোগিতা করা হয়েছে। এটির উন্নয়নে সহযোগিতা অব্যহত থাকবে।

প্রকাশিত : বৃহঃস্পতিবার ২৭শে অক্টোবর ২০১৬ বিকাল ০৩:১৭:০১

‘ঘূর্ণিঝড়টি মঙ্গলবার সকাল ৯টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৯৫ কি.মি. দক্ষিণে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৫১০ কি.মি. দক্ষিণে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৪৫ কি.মি. দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৭৫ কি.মি. দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।’ গভীর নিম্নচাপ হচ্ছে একটি ঝড়ো হাওয়ার অঞ্চল, যেখানে বাতাসের গতিবেগ ৫১ থেকে ৬০ কিলোমিটারের মধ্যে। কোনো ঝোড়ো হাওয়ার অঞ্চলে বাতাসের গতিবেগ ৬১ থেকে ৮৮ কিলোমিটারের মধ্যে হলে তাকে ঘূর্ণিঝড় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ঘূর্ণিঝড় ‘কায়ান্ট’ বাংলাদেশের উপকূলের দিকে এগিয়ে আসছে কি না- জানতে চাইলে আবহাওয়াবিদ ওমর ফারুক ব্রেকিংনিউজ.কম.বিডিকে বলেন, ‘তা এখনও বোঝা যাচ্ছে না। এটি বেশ দূরে। ঘূর্ণিঝড় এগিয়ে চলার পথে বারবার গতিপথ পরিবর্তন করতে পারে।’ বিশেষ বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, ‘ঘূর্ণিঝড়টি মঙ্গলবার সকাল ৯টায় চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৯৫ কি.মি. দক্ষিণে, কক্সবাজার সমুদ্রবন্দর থেকে ৫১০ কি.মি. দক্ষিণে, মংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৬৪৫ কি.মি. দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে এবং পায়রা সমুদ্রবন্দর থেকে ৫৭৫ কি.মি. দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থান করছিল। এটি আরও ঘণীভূত হয়ে উত্তর-পশ্চিম দিকে অগ্রসর হতে পারে।’

প্রকাশিত : মঙ্গলবার ২৫শে অক্টোবর ২০১৬ বিকাল ০৪:৪০:১৪

নড়াইলে বাণিজ্যিকভাবে তৈরি হচ্ছে জৈব সার। নড়াইল পৌরসভার উজিরপুর অর্গানিক বহুমুখি সমবায় সমিতির তৈরি ‘চিত্রা জৈব সারের’ চাহিদা দিন দিন কৃষকদের মধ্যে বৃদ্ধি পাচ্ছে। কৃষকরা জমিতে বিভিন্ন ফসলে এ সার ব্যব্যহার করায় একদিকে মাটির গুনাগুনও বাড়ছে এবং ভালো ফল পাচ্ছেন। পানের বরজ, সবজি, ধানসহ বিভিন্ন ফসলে কৃষকরা এই জৈব সার ব্যবহার করছেন। সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, চারটি উপাদানে তৈরি হচ্ছে এই জৈব সার। এ উপাদানগুলি হলো এজোলা (এক প্রকার শ্যাওলা, যাতে প্রোটিন, ইউরিয়া, এমওপি ও ফসফরাসসহ বিভিন্ন মৌল ও গৌণ উপাদান রয়েছে), অ্যাজোফস (এক প্রকার জিবাণু), ভার্মি কম্পোস্ট (কেঁচো সার) ও ট্রাইকো ডারমা মিশ্রিত কম্পোস্ট (এর মধ্যে রয়েছে গোবর, কচুরিপানা, কাঠের গুড়া, চা পাতি বর্জ্য, ধানের চিটা, মুরগির বিষ্টা, সরিষার খৈল, হাড়ের গুড়া, গবাদি পশুর সিং-এর গুড়া ও শামুক-ঝিনুকের গুড়া)। এই জৈব সার প্রস্তুত ও প্যাকেট জাত করতে সময় প্রয়োজন ৪০দিন।

প্রকাশিত : সোমবার ২৪শে অক্টোবর ২০১৬ দুপুর ০২:৩৭:২৪

বান্দরবান: জেলার লামায় পরিবেশ বিধ্বংসী তামাক চাষের বদলে বাংলাদেশের অন্যতম অর্থকারী ফসল ও চিনি শিল্পের প্রধান কাঁচামাল ইক্ষু চাষের ব্যাপক সম্ভাবনা ও চাষীদের মধ্যে ইক্ষু চাষের আগ্রহ দেখা দিয়েছে। বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ইক্ষু প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে কার্যকরী ভূমিকা রেখেছে। একজন সুস্থ মানুষের জন্য বছরে ১৩ কেজি চিনি বা গুড় খাওয়া প্রয়োজন বলে সুপারিশ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্যসংস্থা। সে হিসেবে বাংলাদেশের ১৬ কোটি মানুষের জন্য চিনি বা গুড় প্রয়োজন প্রায় ২১ লক্ষ টন। বাংলাদেশে বর্তমানে ২.০-২.৫ লক্ষ টন চিনি এবং ৪.৫-৫.০ লক্ষ টন গুড় উৎপাদিত হয়। কাজেই দেখা গেছে বাংলাদেশের মোট চাহিদার তুলনায় চিনি ও গুড় উৎপাদন অত্যন্ত অপ্রতুল। কৃষি পার্বত্য অঞ্চলের আদি পেশা ও জীবিকার প্রধান উৎস। কিন্তু পার্বত্য অঞ্চলের কৃষি ব্যবস্থা অনুন্নত ও পশ্চাদপদ। ইক্ষু পার্বত্য অঞ্চলে একটি নতুন অর্থকরী ফসল। খরাসহিষ্ণু ও প্রতিকূল আবহাওয়ায় দীর্ঘ দিন টিকে থাকার মতো সম্পন্ন হওয়ায় পার্বত্য অঞ্চলে ইক্ষু চাষের সম্ভাবনা উজ্জ্বল। বিশেষ করে মৃত্তিকা, পরিবেশ, মানবদেহের জন্য ক্ষতিকর ও বন উজাড়কারী তামাক চাষের পরিবর্তে এই অঞ্চলে ইক্ষু ও সাথীফসল চাষের বিপুল সম্ভাবনা রয়েছে। বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট (ভূতপূর্ব বাংলাদেশ ইক্ষু গবেষণা ইনস্টিটিউট) ২০০৬ সাল থেকে পার্বত্য অঞ্চলে ইক্ষু গবেষণা ও ইক্ষু চাষ সম্প্রসারণের লক্ষ্যে কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশ সুগারক্রপ গবেষণা ইনস্টিটিউট এর বিজ্ঞানী, মাঠ কর্মকর্তাদের নিরলস প্রচেষ্টা ও কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট সবার সহযোগিতায় বর্তমানে এ অঞ্চলে ইক্ষু ও সাথীফসল চাষ তামাকের বিকল্প একটি লাভজনক অর্থকারী ফসল হিসেবে কৃষকদের মধ্যে ব্যাপক সাড়া জাগিয়েছে।

প্রকাশিত : শনিবার ২২শে অক্টোবর ২০১৬ রাত ০৮:৩৪:১১