নারীদের সিঁদুর পরতে দেখলে কার না ভালো লাগে। হিন্দু নারীদের শাড়ি আর সিঁদুরের প্রশংসা কুড়িয়েছে সর্বত্র। আমাদের দেশের হিন্দু মেয়েরা বিয়ের পর সিঁদুর পরবেন এটাই স্বাভাবিক। এখন অবশ্য দিন পাল্টেছে। শহরের হিন্দু নারীরা অনেকেই এখন আর সিঁদুর পরেন না। বিবাহিত নারীদেরকে কপালে সিঁদুর পরতেই হয়। এটা বাধ্যতামূলক প্রথা। কিন্তু তারা কেন এই সিঁদুর পরেন? এর নেপথ্য কারণই বা কি? তা কি আমরা কেউ জানি? তাহলে আসুন হিন্দু নারীদের সিঁদুর পরার কারণ জেনে নেই। আমাদের দেশের নারীরা সিঁদুর পরেন কেন? আসলে আগেকার দিনে সিঁদুর তৈরি হত বাড়িতেই। তাতে কোনওরকম কেমিক্যাল ব্যবহার করা হত না। বরং, একেবারে ভেষজ পদ্ধতি মেনেই তৈরি হতো সিঁদুর। যা মহিলাদের ত্বকের কোনও ক্ষতি করতো না, ত্বককে রাখতো আরও ভালো।

প্রকাশিত : বৃহঃস্পতিবার ২০শে অক্টোবর ২০১৬ দুপুর ০১:৩৪:৩৬

প্রিয়জনের নজর কাড়তে,কী করে নিজেকে আরো আকর্ষণীয় করে তোলা যায়-সেটা ভাবছেন নিশ্চয়! তবে জেনে নিন সেটা কী ভাবে সম্ভব হতে পারে- ১. সাদা বা স্বচ্ছ পোশাকে আপনাকে আরো মোহনীয় লাগতে পারে। তাই কয়েকটি হালকা রঙের স্বচ্ছ পোশাক কিনে নিন। প্রয়োজন মত সেগুলি ব্যবহার করুন।দেখবেন শত জনের মাঝেও আপনার থেকে চোখ সরাতে পারবে না সঙ্গী। ২. গা আঁটা জামা পরুন। গায়ে লেগে থাকে এমন পোশাক পরতে পারেন।বেশ কাজ দেবে।দূর থেকেও সঙ্গীর দৃষ্টি পড়বে আপনার দিকেই। ৩. নিজেকে পুরোপুরি মেলে ধরার চেষ্টা করুন।তবে খোলামেলা নয়-চাই শুধু আভাসটুকু। ৪. মনে রাখবেন-কিছু না দেখিয়েও কিন্তু সব দেখানো যায়।সে জন্য পোশাকে খেয়াল রাখুন,এমনকি রঙেও।ফুল হাতা টার্টেল নেক জামার সাথে শরীরের সঙ্গে লেপ্টে থাকা একটা বেল্ট।এমন পোশাক সহজে লোভনীয় করতে পারে আপনাকে।‌

প্রকাশিত : সোমবার ১০ই অক্টোবর ২০১৬ রাত ০৮:৩৯:৩৯

গরমে এমনিতেই অসুস্থ হয়ে পড়ছেন অনেকেই। যারা সুস্থ রয়েছেন তারাও ক্লান্ত, দুর্বল হয়ে পড়ছেন। ডিহাইড্রেশন ও অতিরিক্ত পেটের সমস্যা এড়াতে সবচেয়ে আগে খেয়াল রাখতে হবে ডায়েটের। যতই খেতে ভালবাসুন না কেন, এই সময় কিন্তু সুস্থ থাকতে একটু সংযম করে চলতেই হবে। জেনে নিন কোন ১০ খাবার গরমে না খাওয়াই ভালো। স্পাইসি খাবার: বিরিয়ানি, ঝাল ঝাল মশলাদার খাবার খেতে সকলেই ভালোবাসেন। কিন্তু গরমে সুস্থ থাকতে অন্তত এই দু’মাস একটু সামলে চলুন। অতিরিক্ত লঙ্কা, আদা, জিরা, দারচিনি খেলে শরীর গরম হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়বেন। আমিষ: রেড মিট, ডিম, চিংড়ি, কাঁকড়া জাতীয় খাবার শরীর বেশি গরম করে। এই সময় আমিষের বদলে তেতো, লাউ, চালকুমড়ো, কাঁচা পেঁপে জাতীয় সব্জি বেশি করে খান।

প্রকাশিত : সোমবার ১০ই অক্টোবর ২০১৬ দুপুর ১২:৩৯:৩০

মুখ বুজে নয়, চুল কাটুন মুখ বুঝে। আপনার মাথার চুলের ছাঁট নিয়ে আপনি এক্সপেরিমেন্ট করতে ভালোবাসেন। আর তাই আজ লম্বা চুল তো কাল ছোট চুল রাখেন আপনি। গরমের সময় তো অনেকেই চুল ছোট ছোট করে কাটিয়ে নেন। কিন্তু যেমন খুশি চুল কাটলেই তো হল না। চুল কাটার আগে আপনার মুখের গড়ন কেমন তা অবশ্যই বুঝে নেওয়া উচিত। এক এক জনের মুখের আদল এক একরকম। কারো মুখ গোলাকার তো কারো মুখ ডিম্বাকার। কোন ধরনের মুখের গড়নে কেমন চুলের ছাঁট মানায় তারই কিছু টিপস। ডিম্বাকার মুখ: যে সব পুরুষের মুখ ডিম্বাকার তাদের মুখে সব ধরনের চুলের ছাঁটই মানায়। মাথার পাশের চুলগুলি একদম ছোট করে নিন। মাথার সামনে দিকে একটু বড় চুল রাখুন। মহিলাদের মুখের আকার ডিম্বাকার হলে, তারা সব ধরনের হেয়ার স্টাইল করতে পারেন।

প্রকাশিত : সোমবার ১০ই অক্টোবর ২০১৬ দুপুর ১২:৩২:৫৬

অন্যের বিছানায় ঘুমাতে যেয়ে অস্বস্তিতে ভোগেননি এমন মানুষ দুর্লভ। প্রায়ই দেখা যায়, নিজের বিছানা ছেড়ে, অন্য একটা জায়গায়, অন্য একটা বিছানায় ঘুমাতে গেলে চট করে ঘুম আসে না। অবশেষে এর রহস্য ভেদ করেছেন বিজ্ঞানীরা। ব্রাউন ইউনিভার্সিটির বিজ্ঞানীরা ৩৫ জনকে নিয়ে একটি সমীক্ষা চালিয়েছেন। সমীক্ষাটি বলছে, যখন আমরা কোনো নতুন জায়গায়, অন্য এক বিছানায় ঘুমাই, তখন আমাদের মস্তিষ্কের বাঁ দিকটা জেগেই থাকে। ঘুমায় শুধু ডান দিকটা। প্রকৃতিই এভাবে মানুষকে সচেতন করে রাখে বিপদের মোকাবিলার জন্য। যাতে বিপদ ঘটলে সঙ্গে সঙ্গে মানুষ সজাগ হতে পারে।

প্রকাশিত : সোমবার ১০ই অক্টোবর ২০১৬ দুপুর ১২:২৯:৩৪

আয়নার সামনে দাঁড়ালেই মন খারাপ হয়ে যায়। সেই কবে থেকে চুড়িদার ধরেছেন, আর ছাড়তে পারছেন না। কারণ, আপনার হিপের অস্বাভাবিক গড়ন। আর চিন্তা নেই। এই অস্বাভাবিক গড়ন থেকে মুক্তি পেতে কী করবেন? আসুন জেনে নেয়া যাক- কী করবেন না ১. আপনি শুধুমাত্র কার্ডিও এক্সারসাইজ় করেন। মূলত জগিং। কিন্তু, এর খুব সামান্য প্রভাব পড়ে হিপে। ২. শুধুমাত্র শরীরের কোনও অংশের মেদ ঝরানোর জন্য ব্যায়াম করবেন না। তার থেকে এমন কোনও ওয়ার্কআউট করুন, যাতে পুরো শরীরের মেদ ঝরে। ৩. অনেকক্ষণ ধরে এক জায়গায় বসে থাকবেন না। এতে গ্লুটস নিষ্ক্রিয় হয়ে পড়ে। ফলে হিপ ভারী হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যা করবেন ১. টেনিস, ব্যাডমিন্টন খেলুন। এতে দৌঁড়ঝাঁপের কারণে ক্যালোরি ঝরে। ২. খেলাধুলায় অভ্যস্ত না থাকলে যোগা করতে পারেন। ৩. স্কোয়াটস, বেঞ্চ প্রেসিং, ওভারহেড প্রেসেস, ডেডলিফটস করুন। এগুলোর মধ্যে প্রতিদিন ৪-৬টি করে এক্সারসাইজ করুন।

প্রকাশিত : শনিবার ৮ই অক্টোবর ২০১৬ দুপুর ০১:২৮:০৮