আসছে শীতকাল। শীতের ঠান্ডা আবহাওয়া আপনার ঠোঁটকে শুষ্ক করে তুলে। তাই এনিয়ে অনেকেই সমস্যায় পড়ে যান। অতিরিক্ত ঠোঁট শুকিয়ে যাওয়ার কারণে অনেকের ঠোঁট ফেটেও যায়, যা খুবই অস্বস্তিকর। তাই ঠোঁট নরম রাখার কিছু উপায় জেনে নেয়া ভাল। • পানি খাওয়া স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি খেলে তা আপনার ঠোঁট নরম রাখতেও সাহায্য করবে। পর্যাপ্ত পরিমাণে পানি খান। এতে করে ঠোঁটের ত্বকে আর্দ্রতা বজায় থাকবে। • আমরা অনেকেই স্বভাববশত রুক্ষ ঠোঁট কিছুক্ষণ পর পর জিভ দিয়ে ভিজিয়ে থাকি। কিন্তু নিমেষেই রুক্ষ ঠোঁটকে নরম করার এই সহজ উপায় আসলে ফাটা ঠোঁটের মূল কারণ। তাই ঠোঁট নরম রাখতে হলে এই অভ্যাস বর্জন করুন।

প্রকাশিত : বুধবার ২৩শে নভেম্বর ২০১৬ ভোর ০৪:৪১:৩০

শীত আসছে। শীতের সময় ঠাণ্ডা ও সর্দি-কাশি হওয়ার প্রবণতা বেশি। শীতকালে রোগে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয় শিশু ও বৃদ্ধরা। এ সময় নবজাতক শিশুর কয়েকটি সাধারণ অসুখের মধ্যে সর্দি-জ্বর, ভাইরাল জ্বর, ঠাণ্ডা, সর্দি-কাশি, কানে সংক্রমণ ও ফ্লু তাদের মধ্যে অন্যতম। তাই এ সময় নবজাতক শিশুর বিশেষ খেয়াল রাখা প্রয়োজন, যাতে শীতের বৈরী আবহাওয়া শিশুর শরীরে কোনো বিরূপ প্রভাব না ফেলে। কিছু বিষয় সম্পর্কে সচেতন হলে অনেকাংশেই শিশুকে রোগ থেকে দূরে রাখা যায়। ১। শিশুর শরীরে যদি ১০১ ডিগ্রি ফারেনহাইট জ্বর, চোখ লাল হয়ে যাওয়া, ঘন ঘন শ্বাস নেয়া, ঠোঁট শুকিয়ে যাওয়া, নাক দিয়ে পানি পড়া, কান চুলকানো ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয় তাহলে দ্রত ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া উচিত।

প্রকাশিত : মঙ্গলবার ২২শে নভেম্বর ২০১৬ ভোর ০৫:২৫:৩৪

অতিরিক্ত মাত্রায় শারীরিক মেলামেশা করার ফলে শুক্র সল্পতা দেখা দেয় অর্থাৎ শুক্রাণুর মাত্রা কমে যায় এবং semen (বীর্য) পাতলা হয়ে যায়। আপনার শরীররে যদি শুক্রাণুর মাত্রা কমে যায় তবে আপনি অনেক সময় সন্তান জন্ম দিতে অক্ষম হতে পারেন। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার তথ্যমতে, প্রতি মিলিলিটার শুক্রাণুতে ২০ মিলিয়নের কম স্পার্ম থাকলে যেকোনো পুরুষ অনুর্বর হতে পারেন। বাজে খাদ্যাভ্যাস, ধূমপান, অ্যালকোহল, অনিয়ন্ত্রিত জীবন, ব্যায়ামে অনীহা প্রভৃতি কারণে দিন দিন অনুর্বরতা বাড়ছে। এক্ষেত্রে বিশেষ সহায়ক মসলা রসুন। কেননা সুস্থ semen (বীর্য) তৈরিতে রসুনের জুড়ি মেলা ভার।

প্রকাশিত : রবিবার ২০শে নভেম্বর ২০১৬ রাত ০৮:০৫:১২

- আই ক্রিম সবসময় ফ্রিজে সংরক্ষণ করবেন। ঠাণ্ডা ক্রিম চোখের ফোলা ভাব কমিয়ে দেয় দ্রুত। - লিপস্টিক ফ্রিজে রাখতে পারেন। ঠোঁটে থাকবে দীর্ঘক্ষণ। - সানস্ক্রিন লোশন দীর্ঘদিন সংরক্ষণ করতে চাইলে ফ্রিজে রাখুন। - মাস্কারা ফ্রিজে রাখলে ভালো থাকে অনেকদিন। ৩ মাস পর পর মাস্কারার বোতল খুলে নেড়েচেড়ে রাখবেন অবশ্যই। - সুগন্ধি ফ্রিজে রাখুন। অন্ধকার এবং ঠাণ্ডা স্থানে এটি সুরক্ষিত থাকবে দীর্ঘদিন। - ঠাণ্ডা টোনার কাজ করে দ্রুত। তাই টোনার সবসময় ফ্রিজে রাখা ভালো। - প্রাকৃতিক উপাদান দিয়ে তৈরি বিভিন্ন প্রসাধনী ফ্রিজে রাখবেন। - রূপচর্চায় অ্যালোভেরা ব্যবহৃত হয় প্রায় সময়ই। অ্যালোভেরা ফ্রিজে সংরক্ষণ করুন। ঠাণ্ডা জেল যেমন দ্রুত কাজ করবে, তেমনি ভালোও থাকবে অনেক দিন পর্যন্ত।

প্রকাশিত : শুক্রবার ১৮ই নভেম্বর ২০১৬ রাত ০২:৫২:৫৮